কামারখালী বাজারে নেই পাবলিক টয়লেট, দুর্ভোগে ক্রেতা-বিক্রেতাসহ ব্যবসায়ীবৃন্দ

0
29

সহিদুল ইসলাম, মধুখালী

ফরিদপুরের মধুখালী উপজেলার কামারখালী বাজারে বড় দুইটা বাজারে টয়লেট থেকেও নেই, এতে ভোগান্তির স্বীকার হচ্ছে কামারখালী বাজারে আসা ক্রেতারা , তবেঁ টয়লেটের এই ভোগান্তি থেকে রক্ষা পাচ্ছে না বাজারের ব্যবসায়ীরাও। মধুখালী উপজেলার প্রধান বাজার হচ্ছে কামারখালী বাজার, এই বাজারের দু-পাশেই অবস্থিত বীরশ্রেষ্ট মুন্সী আব্দুর রউফ এর বাড়ী ও ডিগ্রী কলেজ এবং রেলস্টেশন। এই কলেজটি কামারখালীতে অবস্থিত হওয়ার কারণে কামারখালী বাজারের গুরুত্ব অনেক।

তাছাড়া এই বাজার পাটের বাজারের জন্য অনেক অনেক গুরুত্ব। কামারখালী বাজারে বিভিন্ন ধরনের কয়েকশত ছোট-বড় দোকান রয়েছে। আর এসকল দোকানে প্রতিদিনই হাজারো ক্রেতা-বিক্রেতা ও পথচারীদের সমাগম হয়ে থাকে। বাজারে আসার পর কারো টয়লেটে যাওয়ার প্রয়োজন পরলে এখানে টয়লেটে যাওয়ার মতো কোন পরিবেশ নেই।

সরেজমিন দেখা যায় কামারখালী বাজারের বণিক সমিতির পিছনে টয়লেট থাকলেও তা ব্যবহারের অনুপযোগী হয়ে রয়েছে। সাধারণ মানুষ টয়লেট ব্যবহার না করতে পেরে টয়লেটের আশেপাশে মল ত্যাগ করে রেখেছে। টয়লেটে আসা যাওয়ার মতো কোন ব্যবস্থাও নেই। টয়লেটের এই বেহাল অবস্থার কারণে বেশি ভোগান্তি হচ্ছে বাজারে আসা মহিলা ও শিশুদের এবং ব্যবসায়ীদের।

কামারখালী বাজারে টয়লেটের এই বেহাল অবস্থার বিষয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছে বাজারে আসা নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন বলেন আমরা দ্রুত এই সমস্যা সমাধানের দাবী জানাই এবং একইসাথে তারা প্রশ্ন তুলেন বাজার থেকে প্রতি বছর ইজারার মাধ্যমে যে ৫-৬ লাখ টাকা উত্তোলন করা হয় সেই টাকা দিয়ে কি করা হয় তারা জানতে চাই।

কামারখালী বাজারের টয়লেটের এই দুরবস্থার জন্য বাজারের ব্যবসায়ীরা বণিক সমিতির অবহেলাকে দায়ী করছে, তবে বণিক সমিতি বলছেন ব্যবসায়ীদের কারণেই কামারখালী বাজারের টয়লেটের এই বেহাল অবস্থা।

কামারখালী বাজারের টয়লেট এর বেহাল অবস্থার বিষয়ে জানতে চাইলে কামারখালী বাজার বনিক সমিতির কর্মকর্তারা বলেন এটা ইজারাদার এবং স্থানীয় সরকারের ব্যপার। তাছাড়া কামারখালী বাজারের নামে কোন জমি নাই , যা কিছু আছে সব মালিকানা সম্পত্তি, তাই উন্নয়ন মুলক কাজ করার সুযোগ থাকলেও করার কোন জায়গা নাই এটা আমাদের প্রধান সমস্যা। জায়গার অভাবে বাজারের কোথাও টয়লেট বসানো সম্ভব হয় না। মহিলারা কিভাবে মসজিদের ভিতরে গিয়ে টয়লেটের কাজ সারবেন এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন মহিলা এবং শিশুদের জন্য কামারখালী মহিলা মার্কেটে যে টয়লেট পরিত্যক্ত অবস্থায় আছে সেগুলো রিপেয়ারিং করা প্রয়োজন।

এ ছাড়া ব্যবসায়ীরা তৎপর এবং একতাবদ্ধ হয়ে সচেতনতার মাধ্যমে সকলের সহযোগীতার মাধ্যমে সমিতির পিছনে ল্যাট্রিন রিপেয়ারিং করা প্রয়োজন। তাই সবার অসুবিধার কথা বিবেচনা করিয়া সরকারী জায়গায় সরকারী ভাবে একটি পাবলিক টয়লেট স্থাপন করা এবং রক্ষনাবেক্ষন করার জন্য বাজারে আসা ক্রেতা-বিক্রেতা এবং ব্যবসায়ীরা স্থানীয় সরকারের কাছে দাবী জানান।