আফজাল হত্যা মামলায় পলাশের দায় স্বীকার, ইব্রাহিমের রিমান্ড চেয়েছে পুলিশ

0
70

যশোরের নাজির শংকরপুরে আফজাল হত্যা মামলায় আটক সন্ত্রাসী পলাশ শুক্রবার আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক সালমান আহমেদ শুভ পলাশের জবানবন্দি গ্রহণ করে তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। পলাশ নীলগঞ্জ তাঁতীপাড়ার জাহাঙ্গীর হোসেনের ছেলে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা কোতোয়ালি থানার এসআই শরীফ আল মামুন।


গত বৃহস্পতিবার বিকেলে যশোর সদর উপজেলার হৈবতপুর গ্রাম থেকে তাকে আটক করেন র‌্যাব সদস্যরা। অন্যদিকে, এ মামলায় আটক অপর আসামি ইব্রাহিম ওরফে টাক ইব্রাহিমের পাঁচদিনের রিমান্ডের আবেদন জানিয়েছে পুলিশ। আদালত রোববার রিমান্ড শুনানীর জন্য দিন ধার্য করেছেন। ইব্রাহিম তাঁতী পাড়ার মোশারফেল ছেলে।
এসআই মামুন জানান, সন্ত্রাসী পলাশকে র‌্যাব আটকের পর থানায় সোপর্দ করে। আটক পলাশ জানিয়েছেন, বেশ কয়েকমাস আগে ট্যারা সুজনকে ছুরিকাঘাত করা হয়। যার নেপথ্যে ছিলেন আফজাল বলে দাবি করে ট্যারা সুজন বাহিনী। তার জেরেই দুই পক্ষের মধ্যে শত্রæতা চলে আসছিলো। এর জেরেই ট্যারা সুজন বাহিনী আফজালকে হত্যা করে। যা আদালতে স্বীকার করেছে পলাশ।
অন্যদিকে টাক ইব্রাহিমের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি জানান, রিমান্ডে নিয়ে গুরুত্বপূর্ন তথ্য আসবে। এ জন্য রিমান্ডের আবেদন জানানো হয়েছে।
উল্লেখ্য, গত ২৯ মে রাত সাড়ে ৭টার দিকে নাজির শংকরপুর চাতালের মোড়ের সিটি মডেল একাডেমির সামনে হত্যাসহ প্রায় এক ডজন মামলার আসামি আফজালকে কুপিয়ে হত্যা করে প্রতিপক্ষ সন্ত্রাসীরা।