মণিরামপুরে গৃহবধূকে গাছে বেঁধে নির্যাতনের ঘটনায় মামলা না নিয়ে জিডি নিয়েছে পুলিশ

0
69

মণিরামপুর প্রতিনিধি

মণিরামপুরে জমি-জমা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে ফাতেমা খাতুন (৩৮) নামের এক গৃহবধূকে বেদম মারপিট পূর্বক গাছের সাথে বেঁধে রাখার ঘটনায় মামলা না নিয়ে মারপিটকারীদের দ্বারা প্রভাবিত হয়ে সাধারণ ডায়েরি গ্রহণের অভিযোগ উঠেছে পুলিশের বিরুদ্ধে। এক প্রকার মোটা অংকে তুষ্ট হয়ে বিষয়টি ধামাচাঁপা দেয়ার চেষ্টা করা হয়। অথচ হামলার শিকার ওই নারীকে অজ্ঞান অবস্থায় উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করার সহযোগীতা করেছিল পুলিশ। মারপিটের শিকার ফাতেমা খাতুন উপজেলার জয়পুর গ্রামের রবিউল ইসলামের স্ত্রী।

ভুক্তভোগী পরিবারের অভিযোগ, জমি-জমা বিরোধের জের ধরে গত শুক্রবার স্বজনরা বাড়িতে না থাকার সুযোগে ফাতেমা খাতুনকে একই গ্রামের হাসান আলী, মোবারক হোসেনসহ কয়েকজন ফাতেমাকে মারপিট করে। এক পর্যায় তাকে টেনে-হিঁচড়ে মারপিটকারী কাশেমের বাড়িতে নিয়ে পেঁয়ারা গাছের সাথে বেঁধে রাখা হয়। খবর পেয়ে আহত ফাতেমাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তির ব্যাপারে সহযোগীতা করে পুলিশ। এক পর্যায় ফাতেমার স্বজনরা ঘটনারদিন জড়িতদের বিরুদ্ধে থানায় মামলা করতে চাইলে পুলিশ চিকিৎসার পর মামলা দায়েরের পরামর্শ দেয়।

অভিযোগ রয়েছে ৩ দিন পর চিকিৎসা নিয়ে হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফিরে ফাতেমা ও তার স্বামী রবিউল ইসলাম থানায় মামলার জন্য গেলে তাদেরকে মামলা না করা জন্য চাপ দেয় এসআই ইব্রাহিম হোসেন। এক পর্যায় হুমকি-ধামকী দিয়ে তাদের ইচ্ছার বিরুদ্ধে সাধারণ ডায়েরি গ্রহণ করা হয়। জানতে চাইলে এসআই ইব্রাহিম হোসেন হামলাকারীদের দ্বারা প্রভাবিত এবং টাকা নেওয়ার অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ওই নারীর শরীরে মারপিটের দাগ না থাকায় মামলা নেওয়া হয়নি। বিস্তারিত ওসি (তদন্ত) স্যার ভাল বলতে পারবেন।

মণিরামপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) নুর-ই অলম সিদ্দীকি বলেন, বিষয়টি খোঁজ নিয়ে ব্যবস্থা নেয়া হবে।