খালিশপুর জুটমিল গেটে পাটকল শ্রমিকেরা অবস্থান কর্মসূচি

0
60

২০১৫ সালের মজুরী কমিশন অনুযায়ী খালিশপুর-দৌলতপুর জুটমিলসহ সকল মিলের শ্রমিকদের সমুদয় বকেয়া পরিশোধ ও রাষ্ট্রীয় পাটকল রাষ্ট্রীয় ব্যবস্থাপনায় চালুর দাবিতে সোমবার (৮ নভেম্বর) সকাল ৯টা থেকে ১১টা পর্যন্ত খালিশপুর জুটমিল গেটে পাটকল শ্রমিকেরা অবস্থান কর্মসূচি পালন করেন।

খালিশপুর জুটমিল সিবিএর সাংগঠনিক সম্পাদক ও কারখানা কমিটির সভাপতি মনির হোসেন মনিরের সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক আলমগীর কবীরের সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন দৌলতপুর জুটমিল কারখানা কমিটির সভাপতি নূর মোহাম্মদ, সাধারণ সম্পাদক মোফাজ্জেল হোসেন, বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল- বাসদ খুলনা জেলা সমন্বয়ক জনার্দন দত্ত ন্ন্টাু, শ্রমিক-কৃষক-ছাত্র-জনতা ঐক্য খুলনা জেলা সমন্বয়ক রুহুল আমীন, ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্র (টিইউসি) খুলনা জেলা সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম চন্দন, ছাত্র ফেডারেশন খুলনা মহানগর আহবায়ক আল আমীন শেখ, ক্রিসেন্ট জুটমিলের শ্রমিকনেতা মোশাররফ হোসেন, শ্রমিকনেতা শফিউদ্দীন, ডালিম, আজিজ, আব্দুল হাকিম প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, একদিকে শাসকেরা পাটকলের লোকসানের জন্য শ্রমিকদের দায়ী করে রেখেছে অন্যদিকে পাটকল বন্ধের ১৭ মাস পূর্ণ হলেও সকল শ্রমিক পরিপূর্ণ অর্থ পায়নি।। সঙ্গত কারণে অভুক্ত শ্রমিকরা অত্যন্ত মানবেতর জীবনযাপন করছেন। অসংখ্য শ্রমিকদের সন্তান লেখাপড়া ছেড়ে দিয়েছে। সংসার চালাতে গিয়ে অনেকে অনৈতিক পেশায় প্রবেশ করেছে। এমনকি অদক্ষ পেশায় যুক্ত হয়ে কেউ কেউ দুর্ঘটনায় মৃত্যুবরণ করতে করেছে।

বক্তারা বলেন, অবিলম্বে বন্ধকৃত সকল পাটকলের উৎপাদন পুনরায় চালু করতে হবে। সরকার ঘোষিত ২০১৫ সালের গেজেট অনুযায়ী ডিফারেন্স বোনাস লকডাউনের পাওনা ও অন্যান্য পাওনাসহ খালিশপুর-দৌলতপুরসহ বকেয়া পরিশোধ করতে হবে। অবস্থান কর্মসূচি থেকে আগামী ১৫ নভেম্বর সকাল ১০টা থেকে ১২টা পর্যন্ত বিজেএমসির খুলনা। আঞ্চলিক জোন অফিস ঘেরাও ও স্মারকলিপি প্রদান কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়।

প্রেস বিজ্ঞপ্তি