জলাবদ্ধতা থেকে মুক্তির দাবিতে ভবদহ পানি নিষ্কাশন সংগ্রাম কমিটির প্রতিনিধিসভা ও কর্মসূচি ঘোষণা

0
100

প্রিয়ব্রত ধর

ভবদহ অঞ্চলের ব্যাপক এলাকার জলাবদ্ধতা থেকে মুক্তির লক্ষ্যে আজ শুক্রবার বিকাল চারটায় অভয়নগর উপজেলার মশিয়াহাটী বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের হলরুমে ভবদহ পানি নিষ্কাশন সংগ্রাম কমিটির প্রতিনিধি সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় বক্তারা বলেন যশোর সদরের একাংশ, অভয়নগর, মণিরামপুর ও কেশবপুরের ১২০ গ্রাম জলাবদ্ধ হয়ে পড়েছে। কিন্তু পানি উন্নয়ন বোর্ড জলাবদ্ধতা থেকে মুক্তির জন্য এখনও কার্যকর কোন ভুমিকা গ্রহণ করেনি। ২৫ সেপ্টেম্বরে ডিসি অফিসে পানি উন্নয়ন বোর্ডের সাথে মিটিংয়ে উপস্থিত সবাই সেচ প্রকল্পের বিরোধিতা করার পরও তারা এখনও ব্যর্থ সেচ প্রকল্প জনগনের ঘাড়ে চাপিয়ে দেওয়ার জন্য গো ধরে আছে। এজন্য সভায় পানি উন্নয়নবোর্ডের তীব্র সমালোচনা করা হয়। বক্তারা দাবী তোলেন এখনই ২১ গেট খুলে দিয়ে ভাটিতে অন্তত ৮ কি. মি.চ্যানেল তৈরি করে বাড়িঘরের পানি নিষ্কাশন করা, অবিলম্বে বিল কপালিয়ায় টিআরএম চালু, জমি অধিগ্রহণ করে আমডাঙা খাল গভীর ও প্রশস্ত করা। সভায় লোকদেখানো পাম্প প্রকল্প বাতিলসহ সকল প্রকার নদী খাল পুনঃর্খনন করার দাবি ওঠে।

সংগ্রাম কমিটির আহবায়ক রনজিত বাওয়ালীর সভাপতিত্বে এ সময় বক্তব্য রাখেন কমিটির প্রধান উপদেষ্টা ইকবাল কবির জাহিদ, যুগ্মআহবায়ক গাজী আব্দুল হামিদ, সদস্য সচিব চৈতন্য কুমার পাল, সংগ্রাম কমিটির নেতা অধ্যাপক অনিল বিশ্বাস, হাজিরহাট আঞ্চলিক কমিটির সদস্য সচিব কার্তিক বকসি, সুন্দলী আঞ্চলিক কমিটির আহবায়ক সাধন বিশ্বাস, যুগ্ম আহবায়ব নীলকন্ঠ মন্ডল,মশিয়াহাটি আঞ্চলিক কমিটির আহবায়ক উৎপল বিশ্বাস, মনোহরপুর ইউনিয়ন আঞ্চলিক কমিটির আহবায়ক শেখর বিশ্বাস, সংগ্রাম কমিটির নেতা, ডাঃ শহিদুল হক, রাজু আহমেদ, ব্রজেন সরকার, মহেন্দ্রনাথ রায়, তৃষা চামেলি, শান্তনু চক্রবর্তি, প্রমুখ।

সভা সঞ্চলনা করেন শিবপদ বিশ্বাস। সভায় ৪১ সদস্য বিশিষ্ট ভবদহ পানি নিষ্কাশন সংগ্রাম কমিটি গঠন করা হয়। সভা থেকে আগামী মঙ্গলবার অভয়নগর, যশোের সদর, মনিরামপুর, কেশবপুর ও ডুমুরিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি প্রদান ও আগামী ১৫ নভেম্বর পাওবো তত্তাবধায়ক প্রকৌশলীর অফিসে অবস্থান ও স্সারকলিপি প্রদান করা হবে।