বাঘারপাড়া উপজেলার নয় ইউনিয়নে যারা প্রার্থী হয়েছেন

0
72

এস, এম মুসতাইন, বসুন্দিয়া

বাঘারপাড়া উপজেলার নয়টি ইউনিয়নে আসন্ন ইউপি নির্বাচনে উপজেলা নির্বাচন কমিশনারের কার্যালয়ে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন ৫১২ জন প্রার্থী। তার মধ্যে চেয়ারম্যান পদে ৫৮ জন, সংরক্ষিত মহিলা সদস্য ১০৪ ও সাধারন সদস্য ৩৪৯ জন। সূত্রে আরো জানিয়েছ, নয়টি ইউনিয়নে কারা প্রার্থী হয়েছেন।

১ নং জহুরপুর ইউনিয়ন থেকে চেয়ারম্যান পদে ৮ জন প্রার্থীর মনোনয়নপত্র জমা পড়েছে। জমাকারিরা হলো, আওয়ামী লীগ মনোনীত (নৌকার) প্রতীকের প্রার্থী মোঃ আসাদুজ্জামান, স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে সাবেক চেয়ারম্যান বদর উদ্দিন মোল্যা, আলমগীর হোসেন, কাজী মিরাজুল ইসলাম, আবু তালেব, কাজী মনিরুজ্জামান, আজিজুর রহমান, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মনোনীত প্রার্থী (হাতপাখা) প্রতীকের শেখ রকিবুল ইসলাম ও জাকের পার্টির মনোনীত প্রার্থী (গোলাপ ফুল) প্রতিকের রফিকুল ইসলাম। এছাড়াও সাধারণ সদস্য পদে ৩৭ জন ও সংরক্ষিত মহিলা সদস্য পদে ৯ জন মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন।

২ নং বন্দবিলা ইউনিয়ন থেকে চেয়ারম্যান পদে ১১ জন মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন।এরা হলেন, আওয়ামী লীগ মনোনীত (নৌকার) প্রতীকের প্রার্থী সনজীত কুমার বিশ্বাস, ওয়ার্কার্স পার্টির মনোনীত (হাতুড়ি) প্রতিকের প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান সবদুল হোসেন খান, স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে সাবেক চেয়ারম্যান শওকত হোসেন মন্ডল, সাবেক চেয়ারম্যান কাজী কামরুল ইসলাম, সাইফুজ্জামান চৌধুরী (ভোলা), মনিরুজ্জামান তপন, আনোয়ার হোসেন, জিয়াউর রহমান, মাসুম রেজা, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের (হাতপাখা) প্রতীকের মনোনীত প্রার্থী আনিচুর রহমান ও জাকের পার্টির মনোনীত প্রার্থী (গোলাপ ফুল) প্রতীকের আবু বক্কার। এছাড়াও সাধারণ সদস্য পদে ৪৬ জন ও সংরক্ষিত মহিলা সদস্য পদে ১৫ জন মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন।

৩ নং রায়পুর ইউনিয়ন থেকে চেয়ারম্যান পদে ৭ জন মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন। তারা হলেন, আওয়ামী লীগ মনোনীত (নৌকা) প্রতীকের প্রার্থী বিল্লাল হোসেন, স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে বর্তমান চেয়ারম্যান মঞ্জুর রশিদ স্বপন, সাবেক চেয়ারম্যান জহুরুল হক, সাবেক ইউপি সদস্য মোশাররফ হোসেন, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা সেলিম রেজা বাদশা, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মনোনীত (হাতপাখা) প্রতীকের জাহিদ হাসান ও জাকের পার্টির মনোনীত প্রার্থী (গোলাপ ফুল) প্রতীকের আবুল কাশেম। এছাড়াও সাধারণ সদস্য পদে ৩১ জন ও সংরক্ষিত মহিলা সদস্য পদে ৯ জন মনোনয়নপত্র দাখিল পড়েছে।

৪নং নারিকেলবাড়িয়া ইউনিয়ন থেকে চেয়ারম্যান পদে ৫ জনের মনোনয়নপত্র জমা পড়েছে। তারা হলেন, আওয়ামী লীগ মনোনীত (নৌকা) প্রতীকের প্রার্থী দলের ইউনিয়ন আ.লীগের সভাপতি বাবলু কুমার সাহা, স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে বর্তমান চেয়ারম্যান আবু তাহের আবুল সরদার, শওকত হোসেন, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মনোনীত প্রার্থী (হাতপাখা) প্রতীকের আব্দুল ওয়াদুদ খান ও জাকের পার্টির মনোনীত প্রার্থী (গোলাপ ফুল) প্রতীকের জমির উদ্দিন মোল্যা। তাছাড়া সাধারণ সদস্য পদে ৪১ জন ও সংরক্ষিত মহিলা সদস্য পদে ১১ জন মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন।

৫ নং ধলগ্রাম ইউনিয়ন থেকে চেয়ারম্যান পদে মাত্র ২ জন মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন। এরা হলেন, আওয়ামী লীগ মনোনীত (নৌকা) প্রতীকের প্রার্থী রবিউল ইসলাম রবি ও স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন আতিয়ার রহমান সরদার। এছাড়াও সাধারণ সদস্য পদে ৩৫ জন ও সংরক্ষিত মহিলা সদস্য পদে ১৫ জন মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন।

৬ নং দোহাকুলা ইউনিয়ন থেকে চেয়ারম্যান পদে ৪ জন মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন। তারা হলেন, আওয়ামী লীগ মনোনীত (নৌকা) প্রতীকের প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান আবু মোতালেব তরফদার, স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে অরুন কুমার অধিকারী, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মনোনীত প্রার্থী (হাতপাখা) প্রতীকের রুহুল কুদ্দুস ও জাকের পার্টির মনোনীত প্রার্থী (গোলাপ ফুল) প্রতীকের নূর জালাল। এছাড়াও সাধারণ সদস্য পদে ৩৯ জন ও সংরক্ষিত মহিলা সদস্য পদে ৯ জন মনোনয়নপত্র জমা পড়েছে।

৮ নং বাসুয়াড়ী ইউনিয়ন থেকে চেয়ারম্যান পদে ৫ জন মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন। তারা হলো, আওয়ামী লীগ মনোনীত (নৌকা) প্রতীকের প্রার্থী আমিনুর রহমান সরদার, স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন বর্তমান চেয়ারম্যান আবু সাঈদ সরদার, সাবেক চেয়ারম্যান প্রফেসর মশিয়ার রহমান, হাফিজুর রহমান ও মিজানুর রহমান। এছাড়া সাধারণ সদস্যরা ৪৬ জন ও সংরক্ষিত মহিলা সদস্য ১২ জন মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন।

৯ নং জামদিয়া ইউনিয়ন থেকে চেয়ারম্যান পদে ৮ জন মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন। তারা হলেন, আওয়ামী লীগ মনোনীত (নৌকা) প্রতীকের প্রার্থী শেখ আরিফুল ইসলাম তিব্বত, স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে জাহাঙ্গীর আলম, সেলিম রেজা, আসলাম হোসেন, সাইফুল ইসলাম, শামীম রেজা, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মনোনীত (হাতপাখা) প্রতীকের প্রার্থী খাইরুল ইসলাম মিঠু ও ওয়ার্কাস পার্টির মনোনীত (হাতুড়ি) প্রতীকের প্রার্থী কম. মোস্তাফিজুর রহমান লাল মিয়া। এছাড়া সাধারন সদস্য পদে ৪৩ জন ও সংরক্ষিত মহিলা সদস্য পদে ১৫ জন মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন।

৭ নং দরাজহাট ইউনিয়ন থেকে চেয়ারম্যান পদে ৮ জন মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন। তারা হলেন, আওয়ামী লীগ মনোনীত (নৌকা) প্রতীকের প্রার্থী সাবেক চেয়ারম্যান জাকির হোসেন, স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন বর্তমান চেয়ারম্যান আয়ুব হোসেন বাবলু, মোহাম্মাদ আলী, জেলা পরিষদ সদস্য ইকবাল হোসেন, রফিকুল ইসলাম, গোলাম মোস্তফা ফুল মিয়া, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মনোনীত (হাতপাখা) প্রতীকের প্রার্থী মোস্তাফিজুর রহমান ও জাকের পার্টির মনোনীত গোলাপ (ফুল) প্রতীকের প্রার্থী ওমর আলী। এছাড়াও সাধারণ সদস্য পদে ৩১ জন ও সংরক্ষিত মহিলা সদস্য পদে ৯ জন মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন।

উল্লেখ্য, নির্বাচন কমিশনের ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী ২ নভেম্বর ছিল তৃতীয় ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ দিন। আগামী ৪ নভেম্বর মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই পর্ব, ১১ নভেম্বর প্রার্থীতা প্রত্যহারের শেষ সময় এবং ভোট গ্রহণ হবে ২৮ নভেম্বর। এখন অপেক্ষার পালা সাধারন ভোটারদের মাঝে বইছে ভোটের হাওয়া।