ব্যবসায়ির কাছ থেকে চাঁদাবাজির অভিযোগ অস্বীকার কেশবপুর পৌর মেয়রের

0
66

বিশেষ প্রতিনিধি

ব্যবসায়ির কাছ থেকে চাঁদাবাজি করার অভিযোগ অস্বীকার করে সংবাদ সম্মেলন করেছেন যশোরের কেশবপুর পৌরসভার মেয়র রফিকুল ইসলাম। শনিবার ২৮ আগষ্ট সকালে প্রেসক্লাব যশোর মিলনায়তনে সংবাদ সম্মেলনে তিনি তার বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির অভিযোগ ভিত্তিহীন বলে দাবি করেন। লিখিত বক্তব্যে পৌর মেয়র রফিকুল ইসলাম বলেন, আমি কারো কাছ থেকে কোনো ধরণের চাঁদাবাজি করিনি। আমার বিরুদ্ধে কেন অভিযোগ উঠছে তা নিজেই বুঝতে পারছি না।

গত ১৭ আগস্ট কেশবপুর উপজেলার বাসিন্দা ব্যবসায়ি মফিদুল ইসলাম বাদি হয়ে যশোরের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে পৌর মেয়র রফিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির একটি মামলা করেন। বিচারক মামলাটি আমলে নিয়ে পিবিআইকে তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেন। এরপর গত ২৩ আগস্ট প্রেসক্লাব যশোর মিলনায়তনে সংবাদ সম্মেলন করে মফিদুল ইসলাম দাবি করেন, মেয়রের লোকজন জোর করে তার ডিস লাইনের ব্যবসা দখল করে নিয়েছেন। এরপর মেয়র রফিকুল ইসলাম শনিবার ২৮ আগষ্ট প্রেসক্লাব যশোরে পাল্টা সংবাদ সম্মেলন করেন।

নিজেকে যশোর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাংসদ শাহীন চাকলাদারের লোক দাবি করে রফিকুল ইসলাম বলেন, আমরা সবাই শাহীন চাকলাদরের লোক। আমি দ্বিতীয় মেয়াদে মেয়র নির্বাচিত হই। শাহীন চাকলাদার কেশবপুরের সাংসদ নির্বাচিত হওয়ার পর থেকেই আমার বিরুদ্ধে একটি পক্ষ চাঁদাবাজির অভিযোগ তুলছে। যা আদৌও সত্য নয়। আপনার বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির অভিযোগ উঠছে কেন-এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের গত মেয়াদে কেশবপুরে ত্রাস ছিলো হাতুড়ি ও গামছা বাহিনী। ওই সব বাহিনীর মাস্টারমাইন্ড ছিলেন মফিদুল ইসলাম। তার দুই ভাই আজিজ ও শরিফুল মূলত বাহিনী চালানো। তখন আমি তাদের বিরোধীতা করেছি। সেই জেরে তারা হয়তো আমার বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির অভিযোগে মামলা করতে পারেন।

কেশবপুর উপজেলার মফিদুল ইসলাম নামে এক ব্যক্তির কাছ থেকে এক লাখ টাকা চাঁদাবাজি করেছি। আরো ১০ লাখ টাকার জন্যে হুমকি দেওয়া হচ্ছে মর্মে যশোরের একটি আদালতে একটি মামলা দায়ের করেছেন। পরে তার ডিস লাইনের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান আমি দখল করে নিয়েছি-এ অভিযোগে যশোর প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করা হয়েছে। দুটি অভিযোগের কোনোটিই সত্য নয়। সম্পূর্ণ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন। প্রকৃত অর্থে মফিদুলের কেশবপুরে ডিস লাইনের কোনো ব্যবসাই নেই বলে পৌর মেয়র রফিকুল ইসলাম দাবি করেছেন। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন কেশবপুর পৌরসভার কাউন্সিলর শহিদুজ্জামান, আতিয়ার রহমান, আফজাল হোসেন, কামাল হোসেন, খাদিজা খাতুন, আসমা খাতুন প্রমুখ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here