কোয়ারেন্টাইনে থাকা ভারতে যাত্রীদের মাঝে উন্নত মানের খাবার পরিবেশন করলেন মেয়র লিটন

0
27

বেনাপোল প্রতিনিধি

আর্তমানবতার সেবায় বেনাপোল পৌর মেয়র আরো এক ধাপ এগিয়ে ঈদুল আযহার দিনেও থেমে নেই। মানবিকতার মানবিক এ্ই মানুষটি ঈদের দিনেও একটু অবসর সময় না কাটিয়ে ছুটছেন স্থল বন্দর বেনাপোলের এ প্রান্ত থেকে ও প্রান্তর। কারন গত কয়েকদিনে করোনার কারনে কাজে যেতে না পারা ঘরবন্দি মানুষের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেছেন তিনি নিজে।

নিজের শহরের মানুষের কথা ভাবার পাশাপাশি তিনি আরো ভেবেছেন এই শহরে থাকা অন্যান্য মানুষের কথা। যারা ঈদের আনন্দ থেকে বঞ্চিত তাদের জন্য সকাল দুপুরের উন্নত মানের খাবার পরিবেশন করেছেন মেয়র লিটন । বিশেষ করে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে যারা ভারত গিয়েছিল এবং ভারত থেকে ফেরত এসে করোনা মহামারির কারনে এই শহরের বিভিন্ন আবাসিক হোটেলে আটকে আছে ১৪ দিন কোয়ারেন্টাইনে । এসব মানুষ পরিবার পরিজনের সাথে ইচ্ছা থাকা সত্বেও ঈদ উদযাপন করতে পারছে না। তাদের পাশে থেকে তিনি সামান্য সময়ের জন্য হলেও একটু খুশি রাখার চেষ্টা করেছেন।

বুধবার সকাল সাড়ে ৮ টার সময় মেয়র লিটনের অনুপ্রেরনায় উন্নত মানের খাবার বিতারণ করেছেন বেনাপোল পৌর কর্তৃপক্ষ। এরপর দুপুরের খাবার বিতরণ এর জন্য তিনি নিজে গাড়িতে করে বেনাপোল পর্যটন মোটেল থেকে চেকপোষ্ট পর্যন্ত ভারত ফেরত পাসপোর্ট যাত্রীদের মধ্যে নিজ অর্থায়নে খাবার পরিবেশন করেন। প্রায় ৪ শতাধিক মানুষের মাঝে এ খাবার পৌছে দেন মেয়র লিটন। তিনি নিজে উপস্থিত থেকে বেনাপোল ইমিগ্রেশনে কর্মরত পুলিশ ও স্থল বন্দরে নিরাপত্তার দায়িত্বে কর্মরত কর্মীদের মাঝে নিজ হাতে এসব খাবার পৌঁছে দেন। দেশের জন্য জীবন বাজী রেখে অগ্নি নির্বাপকের কাজে নিয়োজিত ফায়ার সাভিস সদস্যদের মাঝেও তিনি নিজ গাড়িতে পৌছে দেন খাবার সামগ্রী।

বেনাপোল ইমিগ্রেশন ওসি মুজিবুর রহমান বলেন, বেনাপোল মেয়র আজ একটি বিশেষ দিনে এই শহরে াকা অন্যান্য জেলার মানুষকে নিজ শহরের মানুষ এর মত ভালবেসে খাবার পৌছে দিচ্ছে এটা একজন মানবিক মানুষের গুনাবলি। এখানে খাবার দেওয়া বড় বিষয় নয়। তার মানসিক চিন্তা ভাবনা যে কত উচ্চতর সেটা ভাবতে হবে। কারন আজ পয়সা থাকলেও ভারত ফেরত যাত্রীরা উন্নত মানের বা ঈদের খাবার সংগ্রহ করতে পারবে না ও পরিবার পরিজনের সাথে ঈদ করতে পারছে না। তারা এই দিনটিকে চিরদীন স্মরন রাখত। এবং যতদিন বেঁচে থাকত ততদিন দুঃখ পেত। সেই দুঃখ নিবারণ করেছে এই শহরের নগর পিতা। কিছু সময়য়ের জন্য হলেও ওই সব মানুষের দুঃখ ঘুচাতে পেরেছেন তিনি। এছাড়া তিনি আমাদের কথাও যে স্মরন করেছেন এটাও তার উচ্চ মানসিকতার পরিচয়।

বেনাপোল ফায়ার সার্ভিসের ষ্টেশন মাষ্টার রতন কুমার বলেন, আমি আজ নতুন জ্ঞান অর্জন করলাম। এরকম একজন মানবপ্রিয় মানুষ এখনো আমাদের দেশে রয়েছে। চাকরির সুবাদে অনেক জায়গায় ঘুরেছি তবে এরকম কাউকে পায়নি। এটা একজন আদর্শ নেতার পরিচয়।

মেয়র লিটনের সাথে উপ্িস্থত ছিলেন বেনাপোল পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি আসাদুজ্জামান তনি।
উল্লেখ্য এর আগে গত ঈদেও তিনি এই শহরে আটকে পড়া পাসপোর্ট যাত্রীদের মাঝে খাবার পরিবেশন করেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here