রূপদিয়ায় মাদক ব্যবসায়ীর অত্যাচারে অতিষ্ঠ এলাকাবাসী, বিচারের দাবিতে মানববন্ধন

0
37

মুক্ত খান, রূপদিয়া

ঘটনাটি ঘটেছে যশোর সদর উপজেলার নরেন্দ্রপুর ইউনিয়নের চিহ্নিত মাদক সম্রাট “শহিদ” দেশীয় অস্ত্রসহ পুলিশের হাতে আটকের মাত্র ১ দিনপর ছাড়া পেয়ে আবারও বেপরোয়া হয়ে উঠেছে শহিদ গ্যাং। বিচারের দাবিতে মানব বন্ধন। এলাকাবাসীর অভিযোগ নরেন্দ্রপুর গ্রামের কাহার মকবুল হোসেনের ছেলে শহিদ হোসেন এলাকার চিহ্নিত মাদককারবারী।

গত শুক্রবার বিকেলে শহিদ তার সাঙ্গপাঙ্গরা অস্ত্র নিয়ে নরেন্দ্রপুর কচাঁতলা নামক স্থানে ত্রাস সৃষ্ট্রির লক্ষে মহড়া দিচ্ছিল। এমন সময় স্থানীয় জনতা নরেন্দ্রপুর পুলিশ ক্যাম্পে খবর দেন।

সংবাদ পেয়ে পুলিশ ক্যাম্পের এএসআই আজাদ হোসেন তার সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে দ্রুত ঘটনা স্থালে এসে ২ টি দেশীয় ধারালো (রামদা) অস্ত্রসহ মাদক ব্যবসায়ী শহিদকে হাতেনাতে আটক করেন। শহিদ এলাকার যুব সমাজকে মাদকের দিকে নিয়ে যাওয়ায় এলাকাবাসী তার অত্যাচারে অতিষ্ঠ ছিলো বহুদিন ধরে। কিন্তু কোন অশুভ শক্তিবলে মাত্র ১ দিন পর যখন পুলিশের হাতে অস্ত্রসহ ধৃত শহিদের মুক্তিতে উদ্বিগ্ন গ্রামবাসী।

স্থানীয় একাধিক ব্যক্তিরা জানান, এই শহিদকে কিছুদিন পূর্বে মাদক সহ পুলিশের হাতে ধরিয়ে দেওয়ায় মূলত: গ্রামের বেশ কিছু ব্যাক্তি উপর ক্ষীপ্ত হয়। তাই জামিনে এসে কচাঁতলায় প্রকাশ্যে বেশ কিছু সাঙ্গোপাঙ্গো নিয়ে অস্ত্রসহ মহড়া দিতে থাকে। তাদের ধারনা করা ব্যাক্তিদের শিক্ষা দেওয়ার জন্যই প্রকাশ্যে অস্ত্রসহ পরিকল্পিত ভাবে মহড়া দিতে থাকে। তাদের উপর হামলা করার আগেই পুলিশ সংবাদ পেয়ে শহিদকে আটক করে। বারবার এই শহিদ গ্যাং অপরাধমূলক কর্মকান্ড করে পার পেয়ে যাচ্ছে কি ভাবে এলাকার সুধী ব্যাক্তিদের মনে প্রশ্ন ? চিহ্নিত সকল মাদক ব্যবসায়ীদের আইনের আওতায় এনে বিচারের দাবি জানান এলাকার সচেতন মহল।

এই নিয়ে বুধবার বিকেল ৫ টার সময় স্থানীয় নরেন্দ্রপুর কচাঁতলা নামক স্থানে হিন্দু-মুসলিম একত্রে মাদক ব্যবসায়ী ও সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে আইনের আওতায় এনে বিচারের দাবীতে মানব বন্ধন করেন।

মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন নরেন্দ্রপুর ইউপি সদস্য সুজিত বিশ্বাস, সাবেক ইউপি সদস্য আমিনুর রহমান, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও সমাজ সেবক রাজু আহম্মেদ রাজুসহ এলাকার গন্যমান্য ব্যাক্তিবর্গরা।

এসময় বক্তব্যে বলেন- বর্তমান সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যখন মাদকের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষনা করেছেন ঠিক তখন এই শহিদ গ্যাং তার দলবল নিয়ে প্রশাসনকে বৃদ্ধাঙ্গুলী দেখিয়ে রমরমা মাদক ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। এব্যাপারে স্থানীয় জনগন কিছু বলতে গেলে প্রকাশ্যে অস্ত্র দেখিয়ে তাদের মেরে ফেলার হুমকি দেয়। যে কারণে শহিদের বিরুদ্ধে কেউ টক্কর দিতে যায়না। শহিদের জেল থেকে বেরিয়ে এসে এলাকায় হুংকার দিয়ে বলে আমাকে চিনিস। আমার হাত অনেক লম্বা, আমাকে আটকে রাখার মত জেল এখনও বাংলাদেশে তৈরি হয়নি। আমার বিরুদ্ধে কেই কথা বল্লে তাকে দুনিয়াতে রাখবোনা।

এসব কথা শোনার পর এলাকাবাসী নিরুপায় হয়ে গত ৭ তারিখে শতাধিক ব্যাক্তির গণস্বাক্ষরিত একটি অভিযোগ দায়ের করেন যশোর কোতয়ালী মডেল থানায়। এছাড়াও ওই এলাকার ফারুক হোসেন নামক এক ব্যাক্তিকে হুমকি দেওয়ায় সে বাদি হয়ে শহিদ সহ ৫/৬ জনকে অভিযোগ করে একটি জিডিও করেন। যার নং ৩০৬, তারিখ ০৭/০৭/২০২১ ইং।

এব্যাপারে প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করে নরেন্দ্রপুর ইউনিয়নকে মাদক ও সন্ত্রাস মুক্ত করার জোর দাবি জানান এলাকাবাসী। তা না হলে যেকোন সময় ঘটে যেতে পারে বড় ধরনের দূর্ঘটনা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here