আশাশুনির কাদাকাটি ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান আর নেই

0
18

আশাশুনি প্রতিনিধি

আশাশুনি উপজেলার সাবেক দরগাহপুর ও বর্তমান কাদাকাটি ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মর্ত্তাজুল হক (৭২) ইন্তেকাল করেছেন। (ইন্নালিল্লাহি অইন্না ইলায়হি রাজেউন)। রবিবার ভোর ৬ টার দিকে সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে করোনায় আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি ইন্তেকাল করেন। রবিবার সকাল ৭ টায় মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে তার মরদেহ গ্রামের বাড়ি কাদাকাটিতে আনা হয়। দুপুর ২ টায় কাদাকাটি সরদারবাড়ি কেন্দ্রীয় আহলে হাদিস জামে মসজিদ প্রাঙ্গনে মরহুমের নামাজা অনুষ্ঠিত হয়।

জানাযা নামাজে ইমামতি করেন, সাতক্ষীরা জেলা জমঈয়তে আহলে হাদীসের সভাপতি উপধ্যক্ষ (অবঃ) আলহাজ্ব ওবায়দুল্লাহ গযনফর। এসময় আহলে হাদীছ আন্দোলনের নেতা মাওলানা জাহাঙ্গীর আলম, কাদাকাটি আরার মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা প্রধান শিক্ষক আলহাজ্ব আ ক ম আলাউল হক, কাদাকাটি ইউপি চেয়ারম্যান দিপংকর কুমার সরকার, আহলে হাদীছ আন্দোলনের আশাশুনি উপজেলা সভাপতি অধ্যাপক হাবিবুল্লাহ বাহার, সাতক্ষীরা আইনজীবি সমিতির সাধারণ সম্পাদক রেজওয়ানুল কবির সবুজ, অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক একেএম শামসুর রহমানসহ বহু হাজী, আলেম ও হাফেজ, শিক্ষক, জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও মুসল্লীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

মরহুম মর্ত্তাজুল হক “হক সাহেব” নামে খ্যাত ছিলেন। তিনি অতীব সদালাপি, নিরংঙ্করী, শত্রুহীন স্বভাবের ব্যক্তিত্ব ও আজীবন জাসদের রাজনীতির সাথে জড়িত ছিলেন। মেজর (অবঃ) আঃ জলিল, আ স ম আঃ রবসহ বিদগ্ধ রাজনীতিবিদদের সাথে তার উঠাবসা ছিল। দরগাহপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর বৃহত্তর ইউনিয়নের সুবিধার কথা বিবেচনা করে তিনি দরগাহপুরকে দু’ভাগে ভাগ করে কাদাকাটিকে পৃথক ইউনিয়ন করার উদ্যোক্তা ছিলেন। কাদাকাটিতে ভূমি অফিস করা, স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স করাসহ অসংখ্য উন্নয়ন মূলক কাজ তার হাতদ্বারা সম্পন্ন হয়েছে। তিনি অসংখ্য প্রতিষ্ঠানের সভাপতি ছিলেন। তিনি একজন খ্যাতনামা খেলোয়াড় ছিলেন। কাদাকাটি যুব মজলিস প্রতিষ্ঠায় তার অবদান ছিল অগ্রগন্য।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here