আলাদীপুর বাজারের অধিকাংশ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ, কঠোর লকডাউনে চরম দুর্বিষহ জীবন যাপন দোকানীদের

0
20

এস এম মুস্তাইন, বসুন্দিয়া

সারা দেশে করোনা ভাইরাস আতংকে, প্রতিদিন আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে, মৃত্যুর সাথে পান্জা লড়ছে অগনীত মানুষ, সেই সাথে মৃত্যুর হার বৃদ্ধি পাচ্ছে। দেশ ব্যাপী কঠোর লকডাউন ঘরে থাকুন সুস্থ থাকুন, অকারণে বাইরে বেরনো বিধি নিষেধের আওতায়।

বাঘারপাড়া উপজেলার শেষ প্রান্তে (বসুন্দিয়ার পাশে) আলাদীপুর বাজারে দোকান পাট এক বেলা খোলা রাখার নির্দেশ দিয়েছে কিছু কিছু ব্যবসার ক্ষেত্রে। যার ফলে দুরাবস্থায় দিন কাটাতে হচ্ছে অধিকাংশ দোকানদারগনের। চরম দুর্বিষহ জীবন যাপন করছে পরিবার পরিজনদের নিয়ে। ব্যবসা প্রতিষ্ঠান না খুলতে পারলে আরো দুর্দিনে পড়বে দোকানীরা এমন মন্তব্য করছেন সাধারণ মানুষ।

ইতিমধ্যে অনেক দোকানী খেয়ে না খেয়ে দিন কাটাচ্ছেন। সেই সাথে ধার দেনায় চড়া সুদে মহাজনদের কাছে ধর্না দিতে হচ্ছে।

কথা হয় কয়েকজন দোকান মালিকের সাথে চা বিক্রেতা আবজাল হোসেন, লটন, মহসিন, সোয়েব আলী, মাসুদ, শিবলু রাজু বিশ্বাস, সেলিম কাজী, সেলুন কারিগর আঃ হালিম হাওলাদার, বিশ্ব দাস, সাঈদ, ইকবাল, সনজিত, তুহিন, বিল্লাল, মুদি দোকানি ফারুক বিশ্বাস, আলিম কাজী, কওছার বিশ্বাস, আবু হোসেন, সাইফুল, জুলফিকার, এছাড়া অনান্য ব্যবসায়ী তারা বলে সারা দেশে করোনার প্রভাব বিস্তারে কঠোর লকডাউন। আমাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ আমরা কি খাবো, আজ পর্যন্ত কেউ খোঁজ খবর নেয়নি। কোন ত্রাণ সামগ্রীও পাইনি তা হলে আমরা কোথায় যাবো।
এই বাজারে অধিকাংশ দোকানী গরীব কোন রকম সংসার চলে ছোট খাট ব্যবসার উপরে। “লকডাউন” তারপর “কঠোর লকডাউন” এর পর আর কি আছে..। যত সমস্যা গরীবের পরে “মরলে মরুক” ছোট ছোট ব্যবসায়ী দিন আনে দিন খায় সেই মানুষ গুলো। চোক্ষুলজ্জার কারণে হাত পাততে পারিনে, দেশ দরদী, জনদরদী, প্রভাবশালী, নেতানেত্রী বৃন্দের খবর তো রাখার প্রয়োজন।

এ বিষয়ে আলাদীপুর বাজার কমিটির সভাপতি বিএম মিজানুর রহমানের সাথে আলাপ কালে তিনি বলেন, ত্রান সামগ্রী বা সাহায্য অনুদানের বিষয় জানেন না। তবে লকডাউন চলছে ঠিক আছে, অসহায় ব্যবসায়ীদের ব্যাপারে উর্ধ্বেতন কতৃপক্ষ ভাল জানেন, তারা কি করবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here