গরুর দড়ি দিয়ে গাছে বেঁধে শিশুকে নির্যাতন!

0
141

সত্যপাঠ ডেস্ক

ঘর থেকে মোবাইল চুরির সন্দেহে পাশের বাড়ির ৯ বছর বয়সের শিশু রিফাতকে ডেকে এনে গাছের সঙ্গে বেঁধে নির্যাতন করে মা-ছেলে। তাদের অমানবিক নির্যাতনে শিশুটি অচেতন হয়ে পড়ে। এক পর্যায়ে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেওয়া হয়। নির্যাতন থেকে রক্ষা পেলেও এ ঘটনায় কোনো বিচার হয়নি।

ঘটনার ছয়দিন পর নির্যাতনের ভিডিওর একটি অংশ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়। পরে বিষটি নজরে পরছে পুলিশ পুলিশ শিশুটিকে উদ্ধার ও নির্যাতনকারী মা-ছেলেকে গ্রেপ্তার করে।

শুক্রবার সকালে তাদের আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনাটি ঘটেছে ময়মনসিংহের গৌরীপুর উপজেলার ডৌহাখলা ইউনিয়নে।

পুলিশ জানায়, গত ৪ জুন দুপুরে উপজেলার রামগোপালপুর ইউনিয়নের মধুবন আদর্শ গ্রামে (গুচ্ছগ্রাম) এ অমানবিক শিশু নির্যাতনের ঘটনা ঘটে। নির্যাতনের শিকার রিফাত রামগোপালপুর ইউনিয়নের মধুবন আদর্শ গ্রামের সুরুজ মিয়ার ছেলে। সে স্থানীয় রামগোপালপুল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্র।

শিশু রিফাতের বাবা সুরুজ মিয়া জানান, গাছ থেকে আম পাড়ার কথা বলে ডৌহাখলা গ্রামের মৃত ডাকাত আব্দুল বারেকের স্ত্রী ফাতেমা আক্তার ও তার ছেলে হিমেল গত শুক্রবার (৪ জুন) রিফাতকে বাড়ি থেকে ডেকে তাদের বাড়িতে নিয়ে যান। আমপাড়ার পর ঘরে গিয়ে দেখতে পায় ফাতেমার মোবাইলটি ঘরে নেই। এ এতে সন্দেহ করে শিশু রিফাতকে। আর সেই চুরির অপবাদ দিয়ে গাছের সঙ্গে গরুর রশি দিয়ে বেঁধে রিফাতকে অমানবিক নির্যাতন করেন মা-ছেলে। এক পর্যায়ে শিশু রিফাত অচেতন হয়ে পড়ে। পরে খবর পেয়ে তিনি স্থানীয় লোকজনের সহযোগিতায় রিফাতকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠায়।

গৌরীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খান আব্দুল হালিম সিদ্দিকী জানান, ঘটনাটি জানার পর এর সাথে জড়িত ফাতেমা ও হিমেলকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। রিফাতের বাবা সুরুজ আলীর কাছ থেকে লিখিত অভিযোগ নিয়ে মামলা নথিভুক্ত করা হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here