বিশ্বসেরা বিশ্ববিদ্যালয়ের তালিকায় স্থান পেয়েছে দেশের চারটি উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠান

0
62

সত্যপাঠ ডেস্ক

‘কিউএস ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটি র‌্যাংকিং-২০২২’-এ বিশ্বসেরা ১ হাজার ৩০০টি বিশ্ববিদ্যালয়ের তালিকায় স্থান পেয়েছে দেশের চারটি উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠান। সম্প্রতি যুক্তরাজ্যভিত্তিক শিক্ষা ও গবেষণা সংস্থা কোয়াককোয়ারলি সায়মন্ডস (কিউএস) বিশ্বসেরা বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর এ তালিকা প্রকাশ করে। তালিকায় স্থান পাওয়া বাংলাদেশের উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো হলো ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট), ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয় ও নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়।

বৈশ্বিক এ তালিকায় দেশের কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ই ৫০০-এর মধ্যে অবস্থান পায়নি। যদিও ভারতের নয়টি ও পাকিস্তানের তিনটি বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে সেরা ৫০০-এর তালিকায়।

দেশের উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে গত বছরের মতো এবারো কিউএস র‌্যাংকিংয়ে বুয়েট ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) অবস্থান ৮০১-১০০০তমের মধ্যে। এ নিয়ে টানা চারবার কিউএস র‌্যাংকিংয়ে ৮০১-১০০০তমের মধ্যে জায়গা করে নিল বুয়েট ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। এর আগে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর অবস্থান আরো ওপরের দিকে ছিল। যদিও কয়েক বছর ধরে বৈশ্বিক এ র‌্যাংকিংয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অবস্থান অবনমন ঘটছে। ২০১২ সালেও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অবস্থান ছিল ৬০১। ২০১৪ সালে অবস্থান হয় ৭০১+।

তালিকায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অবস্থান নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করছেন খোদ উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানটির শিক্ষকরাই। গতকাল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক কামরুল হাসান মামুন ফেসবুক স্ট্যাটাসে লিখেছেন, একটি দেশের সেরা বিশ্ববিদ্যালয়ের মান কমতে থাকা মানে সেই দেশ ধ্বংসের দিকে এগোচ্ছে। এটি সব দেশের ক্ষেত্রে সত্য। আমেরিকার আইআইটি হার্ভার্ডের মান কমে যাওয়া মানে রাষ্ট্র হিসেবে আমেরিকার মান কমে যাওয়া। এই যে র‌্যাংকিংয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অবস্থান নামছে, তার জন্য কি কাউকে জবাবদিহি করতে হচ্ছে বা হয়েছে? একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের মান কিসের ওপর নির্ভর করে? প্রধানত এটি নির্ভর করে সেই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকের মানের ওপর। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কি এখন বিশ্ববিদ্যালয়ের যেমন শিক্ষক হওয়া উচিত সেই মানের শিক্ষক নিয়োগ দেয়?

এদিকে দেশের দুই পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে প্রথমবারের মতো কিউএস ওয়ার্ল্ড র্যাংকিংয়ে স্থান করে নিয়েছে দুটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় ব্র্যাক ও নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়। তালিকায় বিশ্ববিদ্যালয় দুটির অবস্থান ১০০১-১২০০-এর মধ্যে।

শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের কঠোর পরিশ্রমই নর্থ সাউথকে কিউএস ওয়ার্ল্ড র‌্যাংকিংয়ে জায়গা করে দিয়েছে বলে মনে করেন বিশ্ববিদ্যালয়টির উপাচার্য অধ্যাপক ড. আতিকুল ইসলাম। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, কিউএস ওয়ার্ল্ড র‌্যাংকিংয়ে জায়গা করে নেয়ার মাধ্যমে বৈশ্বিকভাবে বড় একটি স্বীকৃতি পেল নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়। এটা অনেক বড় আনন্দের সংবাদ। এ সময় আমাদের শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের কঠোর পরিশ্রমের কথা মনে পড়ছে। এর আগে কিউএস এশিয়া র‌্যাংকিংয়ে নর্থ সাউথ অনেক ভালো অবস্থান অর্জন করে। বিশেষ করে আমাদের বিজনেস স্কুল বৈশ্বিকভাবে ৩৫০-৪০০ ও গ্র্যাজুয়েট এমপ্লয়েবিলিটির দিক থেকে নর্থ সাউথের অবস্থান ৩০১-৫০০-এর মধ্যে। এটা অনেক বড় অর্জন।

বিশ্ববিদ্যালয় র‌্যাংকিংয়ের কয়েকটি তালিকার একটি কিউএস ইউনিভার্সিটি র‌্যাংকিং। তবে উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানের র‌্যাংকিংয়ের ক্ষেত্রে বৈশ্বিকভাবে সবচেয়ে গ্রহণযোগ্য প্রতিষ্ঠানগুলোর একটি কিউএস। গবেষণা ও এর প্রভাব, গ্র্যাজুয়েটদের কর্মসংস্থান, শিক্ষক-শিক্ষার্থী অনুপাত এবং বিদেশী শিক্ষার্থী সংখ্যাসহ নানা দিক বিবেচনায় নিয়ে প্রতি বছর বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর একটি বৈশ্বিক তালিকা তৈরি করে প্রতিষ্ঠানটি। একাডেমিক র‌্যাংকিং অব ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটিস এবং টাইমস হায়ার এডুকেশন ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটি র্যাংকিংও তালিকা প্রকাশ করে। প্রতি বছর ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটি র‌্যাংকিংয়ের তালিকা প্রকাশ করে কিউএস।

কিউএসের এ তালিকায় বৈশ্বিকভাবে প্রথম স্থান অর্জন করেছে যুক্তরাষ্ট্রের ম্যাসাচুসেটস ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি (এমআইটি)। দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে যুক্তরাজ্যের ইউনিভার্সিটি অব অক্সফোর্ড। আর তৃতীয় নম্বরে যৌথভাবে যুক্তরাষ্ট্রের স্ট্যানফোর্ড ও যুক্তরাজ্যের কেমব্রিজ। ৫ নম্বরে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের হার্ভার্ড। কিউএস ওয়ার্ল্ড র‌্যাংকিংয়ের সেরা ১০ বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে পাঁচটিই যুক্তরাষ্ট্রের। এছাড়া চারটি ইংল্যান্ডের ও একটি সুইজারল্যান্ডের।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here