কপিলমুনির গদাইপুর ঘুড়ি উৎস অনুষ্ঠিত

0
30

আ. সবুর আল আমীন, কপিলমুনি

পাইকগাছায় দ্বিতীয় বারের মত ঘুড়ি উৎসব ও প্রতিযোগীতা অনুষ্ঠিত হয়েছে। পরিবেশবাদী সংগঠন বনবিবির উদ্যোগে বুধবার বিকালে উপজেলার গদাইপুর মাঠে ঘুড়ি উৎসব ও প্রতিযোগীতা অনুষ্ঠিত হয়।

ঘুড়ি উৎসবে অংশ গ্রহণ করেন গদাইপুর ইউনিয়ানের বিভিন্ন গ্রামের ঘুড়ি প্রতিযোগী অয়ন ঘোষ, সমির সরকার, অংঙ্কন ঘোষ, আপন দাশ, রাজ বল্লব, সোহাগ সরকার, পরশ দাশ, মোজাহিদ ইসলাম, মোহাম্মদ আলী, আজিক ইসলাম, সোহান সরকার, হেরামন সরকার, খালিদ বিন জাকির ও নিলয় সরকার প্রমুখ। ঘুড়ি উৎসবে তাঁরাঘুড়ি, সাপঘুড়ি, লণ্ঠনঘুড়ি, দোল, বেতঘুড়িসহ নানা ধরনের ও রং বেরং এর ঘুড়ি উড়াতে দেখা যায়।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন বনবিবির সভাপতি সাংবাদিক প্রকাশ ঘোষ বিধান, বনবিবির সদস্য কবি সুশান্ত বিশ্বাস, বিষ্ণু বিশ্বাস ও অভিজিত রায় প্রমুখ। ঘুড়ি ওড়ানো একটি মজার খেলা। সুতা টেনে আকাশে ঘুড়ি ওড়ানো হয়। এটি বিনোদন মুলক খেলা। বহু দেশে ঘুড়ি ওড়ানোর উৎসব ও প্রতিযোগীতা করা হয়। পাতলা কাগজ, পলিথিন ও কাপড়ের সাথে চিকন শলকা লাগিয়ে ঘুড়ি তৈরি করা হয়। বিভিন্ন ধরন, নানা উপাদানে ও নকশায় ঘুড়ি তৈরি হয়। প্রায় ২৮ শত বছর পূর্বে চিন দেশে প্রথম ঘুড়ির উৎপত্তি হয়। পরবর্তিকালে এটি বাংলাদেশ, ভারত, জাপান, কোরিয়াসহ বিভিন্ন দেশে ছড়িয়ে পড়ে। ঘুড়ির সুতা কাটাকাটি একটি মজার খেলা।

আধুনিককালে ঘুড়িগুলোয় সিনথেটিক জাতিয় পদার্থের প্রচলন বেড়েছে। বর্তমানে বিভিন্ন ধরনের ঘুড়ি বিশ্বের নানা দেশে ওড়ানোর প্রচলন রয়েছে। দেশে বিভিন্ন উৎসবে ঘুড়ি ওড়ানোর প্রতিযোগীতা ও উৎসব হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here