নির্বাচনে দেওয়া তিন অঙ্গীকার পালন শুরু মমতার

0
26

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রচুর প্রতিশ্রুতি দিয়ে ক্ষমতায় এসেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এর মধ্যে তিনটি প্রতিশ্রুতি পালনের কাজ শুরু করে দিয়েছেন তিনি। এই তিন প্রতিশ্রুতি হলো- দুয়ারে রেশন পৌঁছে যাবে। গরিব পরিবারকে মাসে ৫০০ টাকা, দলিত ও আদিবাসী পরিবারকে এক হাজার টাকা দেওয়া হবে। ছাত্রছাত্রীদের দেশে বা বিদেশে উচ্চশিক্ষার জন্য ক্রেডিট কার্ড দেওয়া হবে, তাতে খুব কম সুদে ঋণ নেওয়া যাবে।
সোমবার রাজ্য মন্ত্রিসভার বৈঠকে এই তিন প্রতিশ্রুতি পূরণ করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এর জন্য সচিবদের নিয়ে টাস্ক ফোর্স গঠন করা হয়েছে। এ ছাড়া কলকাতা পুলিশে দুই হাজার ৫০০ কর্মী নিয়োগ করার সিদ্ধান্তও নেওয়া হয়েছে।
বিধানসভা ভোটের কিছুদিন আগে ‘দুয়ারে সরকার’ প্রকল্প নিয়েছিলেন মমতা। সেখানে দুয়ারে সরকারের ভ্যান পাড়ায় পাড়ায়, গ্রামে গ্রামে ঘুরত। তাতে স্বাস্থ্যবিমা করা যেত, অন্য সরকারি সুযোগ-সুবিধা পাওয়ার জন্য আবেদন করা যেত। সরকারি কর্মকর্তারা সঙ্গে সঙ্গে ব্যবস্থা নিতেন। তার সাফল্যে উৎসাহিত হয়ে নেওয়া হচ্ছে ‘দুয়ারে রেশন’ প্রকল্প। চাল, গম, তেল তোলার জন্য আর রেশন দোকানে গিয়ে লাইন দেওয়ার প্রয়োজন নেই। রেশন চলে আসবে বাড়িতে। ডিজিটাল কার্ড মেশিনে দেখিয়ে, টাকা দিয়ে বাড়িতে বসেই রেশন পাবেন মানুষ।
তবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, যৌনকর্মী, রূপান্তরকামী, হকার, রিকশা ও ঠেলাওয়ালাদের কাছে চাল পৌঁছে দেওয়া হবে। তাদের পাঁচ কেজি করে চাল দেওয়া হবে। করোনা ও লকডাউনের ফলে তাদের রোজগার কমে গেছে। তাই তাদের কাছে চাল পৌঁছে দেওয়া হবে, যাতে আয় কমলেও তাদের ভাতের অভাব যেন না হয়।
গরিব পরিবারগুলোকে আর্থিক সাহায্য দেওয়া ছিল এবার মমতার অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ প্রতিশ্রুতি। সেটাও প্রথমেই রূপায়ণ করতে উদ্যোগী হয়েছেন তিনি। মুখ্যসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে বিভাগীয় সচিবদের নিয়ে কমিটি করে দিয়েছেন মমতা। তারাই এই প্রকল্প রূপায়ণের দায়িত্বে থাকবে।
মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, উচ্চশিক্ষার জন্য ছাত্রছাত্রীদের ১০ লাখ টাকা পর্যন্ত ক্রেডিট কার্ডের সুবিধা দেবে সরকার। মাত্র ৪% সুদে পড়াশোনার জন্য ঋণের সুবিধা দেওয়া হবে। মুখ্যমন্ত্রী বলেছেন, ছাত্রছাত্রীরা ১০ বছর সময় পাবেন। চাকরি পেয়ে তারা ধীরে ধীরে চার শতাংশ সুদে ঋণ পরিশোধের সুযোগ পাবেন।
সূত্র: ডয়চে ভেলে

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here