ঘূর্ণিঝড় থেকে নিরাপদ থাকতে করণীয়

0
60

সত্যপাঠ ডেস্ক

প্রাণহানি, ধ্বংসযজ্ঞ ও ব্যাপক য়তি নিয়ে আসে একেকটা ঘূর্ণিঝড়। তবে ঘূর্ণিঝড়ের আগে কিছু সতর্কতা অবলম্বন করলে প্রাণহানি ও য়তির পরিমাণ কমানো সম্ভব। এমন কিছু বিষয় তুলে ধরা হলে যেগুলো মেনে চললে প্রাকৃতিক বিপর্যয় ঘূর্ণিঝড়ের করালগ্রাস থেকে অনেকাংশেই বাঁচা সম্ভব-

১. বসবাসের ঘরগুলোর অবস্থা ভালোভাবে পরীা করতে হবে। প্রয়োজনে আরও মজবুত করার ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। প্রয়োজনে খুঁটি পুঁতে দড়ি দিয়ে ঘরের বিভিন্ন অংশ বাঁধতে হবে।

২. ঘূর্ণিঝড় প্রস্তুতি কর্মসূচির (সিপিপি) স্বেচ্ছাসেবকদের সঙ্গে যোগাযোগ করতে হবে এবং তাদের পরামর্শ অনুযায়ী প্রস্তুতি নিতে হবে।

৩. বিপদ সংকেত পাওয়া মাত্রই বাড়ির নারী, শিশু ও বৃদ্ধদের আগে নিকটবর্তী নিরাপদ স্থানে বা আশ্রয়কেন্দ্রে পোঁছে দিতে হবে। অপসারণ নির্দেশের পরে সময় নষ্ট না করে দ্রুত আশ্রয়কেন্দ্রে যেতে হবে।

৪. বাড়ি ছেড়ে যাওয়ার সময় অবশ্যই মনে করে চুলার আগুন নিভিয়ে যেতে হবে।

৫. অতি প্রয়োজনীয় কিছু দ্রব্যসামগ্রী যেমন- ডাল, চাল, দেশলাই, শুকনো কাঠ, পানি ফিটকিরি, চিনি, নিয়মিত ব্যবহৃত ওষুধ, বইপত্র, ব্যান্ডেজ, তুলা, ওরস্যালাইন ইত্যাদি পানি নিরোধন পলিথিন ব্যাগে ভরে গর্তে রেখে ঢাকনা দিয়ে পুঁতে রাখতে হবে।

৬. গরু-ছাগল নিকটস্থ উঁচু বাঁধে অথবা উঁচু স্থানে রাখতে হবে। আর কোনো উঁচু জায়গা না থাকলে এগুলোকে ছেড়ে দিন, এদের নিজেদের মতো করে বাঁচার চেষ্টা করতে দিন।

৭. আশ্রয় নেওয়ার জন্য নির্ধারিত বাড়ির আশপাশে গাছের ডালপালা আসন্ন ঝড়ের আগেই কেটে রাখতে হবে, যাতে ঝড়ে গাছগুলো ভেঙে বা উপড়ে না যায়।

৮. রেডিও বা অন্য মাধ্যমে প্রতি ১৫ মিনিট পর পর ঘূর্ণিঝড়ের খবর শুনতে হবে।

৯. দলিলপত্র ও টাকা-পয়সা পলিথিনে মুড়ে নিজের শরীরের সঙ্গে বেঁধে রাখতে হবে। অথবা সুনির্দিষ্ট স্থানে পরিবারের সদস্যদের জানিয়ে মাটিতে পুঁতে রাখতে হবে।

১০. টিউবওয়েলের মাথা খুলে পৃথকভাবে সংরণ করতে হবে এবং টিউবওয়েলের খোলা মুখ পলিথিন দিয়ে ভালোভাবে আটকে রাখতে হবে, যেন ময়লা বা লবণাক্ত পানি টিউবওয়েলের মধ্যে প্রবেশ না করতে পারে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here