বসুন্দিয়ায় ধানের বাজার দাম কম হওয়ায় চাষিরা হতাশ

0
30

এস.এম মুসতাইন, বসুন্দিয়া
যশোরের বসুন্দিয়া বাজারে হঠাৎ করে ধানের দর কমে যাওয়ায় চাষিরা হতাশ হয়ে পড়ছে। ব্যবসায়ীদের কারসাঝিতে কম দামে ধান কিনছে বলে কৃষকদের অভিমত।
গত মঙ্গলবারে যে ধান বিক্রি হয়েছিল সেই ধান মন প্রতি ২শ থেকে ৩শ টাকা কমে কিনছে ব্যবসায়ীরা।
৮ মে শনিবার বসুন্দিয়ার ব্রীজের পাশে ধান হাট আলাদীপুর বাজার ঘুরে দেখা গেছে, গত মঙ্গলবার হাটে মোটা জাতীয় ধান বিক্রি হয়ে ছিলো (হিরা, তেজগোল্ড, এগ্রো ১২,, ইস্পহানী ১,এস এল ৮) এ জাতীয় ধানের দাম ছিল ১ হাজার ৫০ টাকা, চিকন জাতের ধান (মিনিকেট, ব্রি ২৮, হাবু ২৮ শতক মিনিকেট বিক্রি হয়েছিল ১১শ থেকে ১২ শ টাকা, বাশমতি জাতের ধান ১৩শ থেকে ১৪শ টাকায় বিক্রি হয়েছিল।
তাতে কৃষকের মূখ হাসি ফুটে স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলে বুক ভরা আশায় বাসা বেঁধে মনে অনেক আনন্দ হতো। কিন্তু শনিবার হাটে তা নেমে আসলো প্রতি মনে ২শ থেকে আড়াই শ টাকা। মোটা জাাতের ধান (হিরা১৯, তেজগোল্ড, এসএল ৮, এগ্রো ১২, ইস্পাহানী ১) ধান কিনছে ৮শ টাকায়, চিকন ধান ব্রি ২৮ ৯শ থেকে সাড়ে ৯শ, মিনিকেট ১ হাজার থেকে ১ হাজার ৫০ টাকায়, বাশমতি জাতের চিকন ধান ১১ শ থেকে ১২শ টাকায় কিনছে ব্যবসায়ীরা।
ধানের বাজার দর দেখ কৃষকারা খুশি নয়, চাষবাস খরচ খরচা বাদ দিলে লোকসানের ঘানিতে পড়তে হচ্ছে। কৃষকের মুখে হাসি নেই। সামনে রমজানের ইদ অনেক আশাভরসা ছিল ধান বিক্রি করে মা বাবা স্ত্রীর সন্তানের মূখে হাসি ফুটাবে কষ্টের ফসল ধান বেচে তা আর হচ্ছে না। বাজারে লক্ষ করা গেছে অনেক চাষি মনের দুঃখে কষটের ধান বিয়ে না করে বাড়িতে ফিরিয়ে দিয়ে গেছে।
সরকার ঘোষিত ধানের মূল্য অনুযায়ী বিক্রি করতে পারলেও কৃষকের স্বস্তি পেয়ে কষটের ফসল উৎপাদনে সার্থক হতো বলে চাষিদের প্রত্যাশা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here