বিশ্ব মুক্ত গণমাধ্যম দিবসের আলোচনা : করোনায় মানুষকে সচেতন করছে কমিউনিটি রেডিও

0
56

সত্যপাঠ ডেস্ক
বিশ্ব মুক্ত গণমাধ্যম দিবসের এক আলোচনায় সভায় বক্তারা বলেছেন, কভিড-১৯ মহামারী মোকাবেলায় কমিউনিটি রেডিওগুলো গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। করোনার প্রকোপ কমিয়ে আনতে গ্রামীণ জনগণকে মহামারীর ভয়াবহতা সম্পর্কে অবহিত ও সচেতন করা, নাগরিক সমাজের সংগঠনসমূহ, সরকার, স্বাস্থ্য কর্মীদের এবং জনগণকে উদ্বুদ্ধ করার জন্য সমন্বিত উদ্যোগ গ্রহণ করছে। জনগণের জীবন-জীবিকা স্বাভাবিক রাখা এবং স্থানীয় বাজার, নাগরিক সমাজের সংগঠন এবং সরকারে মধ্যে পারস্পরিক সহযোগিতা বাড়াতে কমিউনিটি রেডিওগুলো ভূমিকা পালন করছে।
এ বছর বিশ্ব মুক্ত গণমাধ্যম দিবসের বৈশ্বিক প্রতিপাদ্য ‘ভয়-ভীতি ও প্রভাব বিহীন সাংবাদিকতা’ (জার্নালিজম উইদাউট ফিয়ার অ্যান্ড ফেবার)। বর্তমান পরিস্থিতি বিবেচনায় রেখে বাংলাদেশ এনজিওস নেটওয়ার্ক ফর রেডিও অ্যান্ড কমিউনিকেশন (বিএনএনআরসি) সম্প্রচাররত ১৭টি কমিউনিটি রেডিও স্টেশনের সাথে যৌথ উদ্যোগে বিশ্ব মুক্ত পালন করেছে।
এ বছরের বিএনএনআরসির প্রতিপাদ্য ছিল ‘কভিড ১৯: সংকটকালীন কমিউনিটি মিডিয়ার অবাধ তথ্য প্রবাহ নিশ্চিতকরণে চ্যালেঞ্জ ও উত্তরণে করণীয়’ বিষয়ক একটি আলোচনা অনুষ্ঠান। মোট ৫১ জন অলোচক এই আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন তাদের মধ্যে রয়েছেন সংসদ সদস্য, জেলা প্রশাসক, জেলা তথ্য কর্মকর্তা, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, স্থানীয় প্রেস ক্লাবের সভাপতি, স্থানীয় এবং জাতীয় পত্রিকায় কর্মরত সাংবাদিক, এনজিওর নির্বাহী পরিচালক, অ্যাডভোকেট, কমিউনিটি রেডিওর প্রধান নির্বাহী, জেলা শিল্পকলা একাডেমির সাধারণ সম্পাদক, নাগরিক সমাজের প্রতিনিধি ও শিক্ষাবিদ উপস্থিত ছিলেন।
আলোচনার উদ্দেশ্য করোনাভাইরাস প্রতিরোধে কমিউনিটি মিডিয়া তথা কমিউনিটি রেডিও ও স্থানীয় গণমাধ্যমের অবাধ তথ্য প্রবাহ নিশ্চিতকরণে চ্যালেঞ্জ ও উত্তরণে সংশ্লিষ্ট সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানসমূহের সমন্বিত সহযোগিতা।
আলোচকরা কমিউনিটি রেডিওর সম্প্রচার অব্যাহত রাখার জন্য এই সংকটকালীন সময়ে সরকারের আন্তরিক সহযোগিতা কামনা করেন। প্রণোদনার আওতায় নিয়ে আসার জোর দাবি জানান। এ ছাড়া কমিউনিটি রেডিও সম্প্রচার এলাকায় ইন্টারনেটের গতি বাড়ানো, নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুত সরবরাহ, মোবাইল ফোনের সংযোগ শক্তিশালী করা, কারিগরি ও জরুরি আর্থিক সহযোগিতার দাবি জানানো হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here