আইসিটি অ্যাক্ট বাতিলসহ মত প্রকাশের স্বাধীনতা নিশ্চিত করার আহ্বান

0
50

সত্যপাঠ ডেস্ক
ডিজিটাল সিকিউরিটি (আইসিটি) অ্যাক্ট বাতিল করে দেশে মত প্রকাশের স্বাধীনতা নিশ্চিত করার আহ্বান জানানো হয়েছে।
সোমবার (৩ মে) ‘বিশ্ব মুক্ত গণমাধ্যম দিবস’ উপলক্ষে আয়োজিত ওয়েবিনারে সাংবাদিক, অধিকারকর্মী ও সমাজের বিভিন্ন পেশার প্রতিনিধিরা তাদের বক্তব্যে এ আহ্বান জানান। বেসরকারি গবেষণা সংস্থা ভয়েস, আরটিকেল ১৯, ফোরাম ফর ফ্রিডম অব এক্সপ্রেশন বাংলাদশে (এফএক্সবি), ইন্টারনিউজ, পেন ইন্টারন্যাশনাল-বাংলাদেশ এবং রিপোর্টার সান ফ্রন্সিটিয়ার্স (আরএসএফ) যৌথভাবে এ ওয়েবিনারের আয়োজন করে।
ওয়েবিনারে আলোচনা সভা পরিচালনা করেন ভয়েস-এর নির্বাহী পরিচালক আহমেদ স্বপন মাহমুদ এবং সভাপতিত্ব করেন আরটিকেল ১৯ এর দক্ষিণ এশিয়ার আঞ্চলিক পরিচালক ফারুক ফয়সাল। এছাড়াও আরএসএফ প্রতিনিধি এবং এফইএক্সবির সাধারণ সম্পাদক সালিম সামাদ, বিশিষ্ট সাংবাদিক মনজুরুল আহসান বুলবুল, পেন ইন্টারন্যাশনালের সেক্রেটারি জেনারেল ডা. অরীন জামান, ইন্টারনিউজের প্রোগ্রাম ম্যানেজার শামীম আরা শিউলি, ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনিয়র প্রভাষক সাইমুম রেজা পিয়াস আলোচনায় বক্তব্য রাখেন। সভায় মূল আলোচনাপত্র উপস্থাপন করেন ভয়েস-এর প্রোগ্রাম অফিসার আফতাব খান শাওন।
মনজুরুল আহসান বুলবুল বলেন, ‘করোনার প্রতিবন্ধকতা, সমস্যা ও চ্যালেঞ্জ সত্ত্বেও সাংবাদিকরা তাদের পেশাদারি দায়িত্ব পালন করছেন।’ তিনি উল্লেখ করেন যে, যদিও সরকার মুক্ত গণমাধ্যমের অস্তিত্ব দাবি করে, কিন্তু মিডিয়ার স্বাধীনতার জন্য সরকার এখনও তেমন কোনও পদক্ষেপ নেয়নি। সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতার জন্য আইনি বিধানগুলোর সংস্কারের ওপর তিনি গুরুত্বারোপ করেন এবং সাংবাদিকদের চাকরির নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য আহ্বান জানান।
সালিম সামাদ বলেন, ‘করোনা ভাইরাস (কোভডি-১৯) মোকাবিলায় নীতি-নির্ধারণী পর্যায়ে সমন্বয়হীনতা, কর্মপরকিল্পনায় অস্বচ্ছতা ও জবাবদিহির প্রকট অভাব রয়েছে। সরকারকে সকল স্তরে জবাবদিহি নিশ্চিত করতে হবে এবং যারা সমালোচনা করে, তাদের অভিযুক্ত না করে বিকল্প কণ্ঠকে সম্মান করতে হবে।’ অপরদিকে তিনি ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্ট বাতিল করে মত প্রকাশের স্বাধীনতা নিশ্চিত করার আহ্বান জানান।
ফারুক ফয়সাল বলেন, ‘সরকারকে অবশ্যই সাংবিধানিক দায়বদ্ধতার চেতনা বহাল রাখতে হবে এবং অন্যান্য ব্যবস্থার মাধ্যমে ভুল তথ্য রোধ করতে হবে।’ তিনি নাগরিক সমাজের সংস্থাগুলোকে একত্রিত হয়ে মত প্রকাশের জন্য নিরপেক্ষ ও সুষ্ঠু পরিবেশ প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে লড়াই করার আহ্বান জানান।
শামীম আরা শিউলি বলেন, ‘সাংবাদিকতা পেশায় নারী সাংবাদিকদের পদোন্নতির ক্ষেত্রে প্রতিকূলতা, প্রতিকূল কর্মপরিবেশ এবং যৌন হয়রানি ও লিঙ্গ বৈষম্যর মতো অনেক বাধা অতিক্রম করতে হয়। মহামারি চলাকালীন এই বাধাগুলো নতুন করে সমস্যা তৈরি করেছে এবং চ্যালেঞ্জ যুক্ত করেছে।’ নারী সাংবাদিকরা পরিস্থিতি কাটিয়ে উঠতে প্রথমে নিজেকে সংগঠিত করা জরুরি বলে তিনি মনে করেন। তিনি বলেন, ‘করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবের কারণে গণমাধ্যমে চাকরি থেকে বাদ দেওয়া, কিংবা বেতন কমিয়ে দেওয়ার ব্যাপারগুলো হতাশার।’ তাই তিনি মিডিয়া আউটলেট মালিকদের অনুরোধ করেন বিষয়টি মানবিক দৃষ্টিকোণ থেকে দেখার জন্য।
ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনিয় প্রভাষক সাইমুম রেজা পিয়াস বলেন, ‘কোভিড -১৯ প্রায় সব কিছু বন্ধ করে দিয়েছে। তবে ডিজিটাল সুরক্ষা আইনের অধীনে মামলাগুলো যে কোনও সমালোচনাকারীর বিরুদ্ধে সম্প্রতি বহুগুণে বৃদ্ধি পেয়েছে। বিশেষত যারা স্বাস্থ্য খাতে দুর্নীতি ও অব্যবস্থাপনার বিরুদ্ধে আওয়াজ তুলছেন।’
ওয়েবিনারে এছাড়াও তুষার রায়, নুর হাসান মানিক, সিরাজুদ্দাহার খান, মাসুদ খান প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here