বেনাপোল ইমিগ্রেশনে পাসপোর্টযাত্রীদের ভোগান্তি

0
32

বেনাপোল প্রতিনিধি
ভারত ফেরত পাসপোর্টযাত্রীরা বেনাপোল চেকপোষ্ট ইমিগ্রেশনে এসে দীর্ঘ সময় পার করছে। এতে করে গরমে তারা অতিষ্ট হয়ে উঠেছে। তাদের সাথে অমানবিক আচারণ করা হচ্ছে কোয়ারেন্টাইনে রাখার বেলায়। ভারত থেকে দুই তিন দিন ঘুরে বাংলাদেশ দূতাবাস থেকে দেশে ফেরার অনুমতি পত্র এবং করোনা সনদ নিয়ে বেনাপোল চেকপোষ্টে এসে পড়েছে বিড়ম্বনায়। সে দেশে চিকিৎসার জন্য যাওয়া ভুক্তভোগী পাসপোর্ট যাত্রীরা টাকা পয়সা শেষ করেছে; এখন দেশে ফিরে নিজ খরচে হোটেল ভাড়া এবং খাওয়া দাওয়া করতে হবে এতে তারা চরম ভোগান্তির শিকার হচ্ছে বলে যাত্রীরা অভিযোগ উঠিয়েছে। সোমবার সরেজমিন বেনাপোল ইমিগ্রেশনে গেলে যাত্রীরা রৌদ্রের মধ্যে ৪/৫ ঘন্টা বসে আছে বলেও অভিযোগ করেন। আবার স্বাস্থ্য বিভাগের সামনে এবং ভিতরে এতটা ভীড় ছিল যে সেখানে স্বাস্থ্য বিধি মানার কোন বালাই নেই।
ভারত ফেরত যাত্রী ঢাকা উত্তরার ফিরোজ আলম বলেন (পাসপোর্ট নং এ-০০৬২১২৭৭) আমি আমার স্ত্রীকে নিয়ে চিকিৎসা শেষে ২ লাখ টাকা খরচ করে দেশে ফিরেছি। কোলকাতায় নিযুক্ত বাংলাদেশ হাইকমিশনে তিন দিন ঘুরে অনুমতি সনদ নিয়ে ফিরেছি। এসে শুনছি এখন ১৪ দিন কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে। আমাদের আসার সময় যদি করোনার তেমন কোন জীবানু দেহে প্রবেশ করে তবে র‌্যাপিড টেষ্ট করা হোক। যাদের জীবনু থাকবে তাদের কোয়ারেন্টাইনে দেওায়া হোক। নারানগঞ্জ জেলার ক্যান্সার রোগি মোকসেদ আলী (৬১) পাসপোর্ট নং (এ-০০০৮১২৯২) এর সাথে যাওয়া সেফালি আক্তার বলেন ( পাসপোর্ট নং এ-০০১৮০৮) আমার পিতা একজন ক্যান্সার রোগি। সকাল ৮ টার সময় তাকে নিয়ে দেশে ফিরি। এখন বেলা সাড়ে ১২টা, আমাদের এখানে বসিয়ে রেখেছে। এটা অমানবিক। এই গরমে এভাবে বসে থাকা কি সম্ভব আপনারা বলেন ? স্বাস্থ্য বিভাগ এর কর্মীদের তাদের সমস্যার কথা বললেও তারা কর্নপাত করেনি। এটা কোন আচরন ? রোগী নিয়ে যদি ৪/৫ ঘন্টা রৌদ্রে বসে থাকতে হয় তাহলে তো রোগী মারাও যেতে পারে। আর আমাদের দেশে ফিরে যদি কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে তবে কেন ভারত থেকে দুতাবাসের অনুমতি পত্র, কোয়ারেন্টাইন সনদ আনতে হবে ? চাপাই নবাবগঞ্জ জেলার শিশির বলেন, আমার সব টাকা চিকিৎসায় খরচ হয়েছে। এখন শুধু যাতায়াত খরচ আছে। কি ভাবে হোটেল ভাড়া দিব? আর কি ভাবে খাওয়া দাওয়া করব? তিনি আরো বলেন ভারতীয় ট্রাক ড্রাইভাররা এদেশে প্রতিদিন প্রবেশ করছে আমরা বিভিন্ন গনমাধ্যেমে জানতে পারছি। তারা করোনা সনদ নিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করছে কি ? আমরা সরকারের দেওয়া সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানাই। তবে সিদ্ধান্তটা কতদুর যৌক্তিক তা বিবেচনা করতে হবে ? খুলনার কালিবাড়ী এলাকার লাবনী সরকার বলেন যাদের রিপোর্ট পজিটিভ তাদের ১৪ দিন আর যাদের নেগেটিভ তাদেরও ১৪ দিন কোয়ারেন্টাইন এট ঠিক হচ্ছে না।
এদিকে গত মঙ্গল, বুধ ও বৃহস্পতিবার ভারত থেকে সর্বোমোট ফিরেছেন ৬৯১ জন আর ভারতে ফেরত গেছেন ১০৪ জন। শুক্রবার সন্ধ্যা ৬ টা নাগাদ এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত বেনাপোল ইমিগ্রেশন দিয়ে পায় ২ শতাধিক যাত্রী ফিরে এসেছে। এবং ভারতে ফিরেছে প্রায় ৩০ জন।
উভয় দেশের মধ্যে আটকে পড়া পাসপোর্ট যাত্রীদের নিরাপদ প্রত্যবর্তন সম্পর্কে নাভারণ সার্কেল সহকারী পুলিশ কমিশনার জুয়েল ইমরান এই প্রতিবেদকের কাছে বলেন আমরা স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের নির্দেশনা অনুযায়ী স্বাস্থ্য বিধি মেনে যাত্রীদের স্থানান্তরের দায়িত্ব পালন করছি।
এদিকে বেনাপোল স্থল বন্দরে উভয় দেশের মধ্যে আমদানি রফতানি বানিজ্য স্বাভাবিক রয়েছে। ট্রাকে মালামাল আসার পাশাপাশি রেল ওয়াগনেও নিয়মিতই আমদানি পণ্য ঢুকছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here