চিংড়ীতে অপদ্রব্য পুশ॥ দুই ব্যবসায়ীকে ৯৫ হাজার টাকা জরিমানা, ১৪০ কেজি মাছ বিনষ্ট

0
42

এম এম নুর আলম, আশাশুনি
আশাশুনিতে বাগদা চিংড়ীতে অপদ্রব্য পুশ করার অপরাধে ভ্রাম্যমান আদালতে দুই ব্যবসায়ীকে সর্বমোট ৯৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। এসময় পুশকৃত ১৪০ কেজি মাছ বিনষ্ট করা হয়।
মঙ্গলবার দুপুরে জেলা প্রশাসক এস এম মোস্তফা কামাল এর নির্দেশে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নাজমুল হুসেইন খাঁন এ ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন। ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনাকালে উপজেলার আনুলিয়া ইউনিয়নের কাকবাসিয়া মৎস্য সেট থেকে ঐ এলাকার সাত্তার গাজীর ছেলে ব্যবসায়ী আজহারুল ইসলামকে বাগদা চিংড়ীতে অপদ্রব্য পুশ করার অপরাধে ৩৫ হাজার টাকা জরিমানা করেন। এসময় তার পুশকৃত ৪০ কেজি বাগদা চিংড়ী জব্দ করে গাড়ির চাকায় পিষ্ট করে বিনষ্ট করা হয়।
অন্যদিকে, একই অপরাধে মির্জাপুর গ্রামের রজব আলী সরদারের ছেলে ব্যবসায়ী আলমগীর হোসেনকে কাকবাসিয়া গ্রামের নারায়ণ চন্দ্র সরকারের বাড়ি থেকে ৬০ হাজার টাকা জরিমানা করেন। এসময় তার পুশকৃত ১০০ কেজি বাগদা চিংড়ী জব্দ করে চেউটিয়া নদীতে ফেলে বিনষ্ট করা হয়। অভিযান পরিচালনা কালে ইউএনও নাজমুল হুসেইন বলেন, সাদা সোনা খ্যাত চিংড়ী মাছ রপ্তানি করে বাংলাদেশ বিপুল পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করে। এ মাছ রপ্তানিতে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের তুলনায় বাংলাদেশের একটি সুনাম রয়েছে। কিন্তু একটি অসাধু চক্র অতি লোভের বশবর্তী হয়ে অধিক মুনাফা লাভের আশায় চিংড়ী মাছে বিভিন্ন ধরনের অপদ্রব্য পুশ করে বহির্বিশ্বে বাংলাদেশের সুনাম নষ্ট করছে।
মাছ চাষীরা তাদের মৎস্য ঘেরে মাছ চাষে অনেক টাকা খরচ করলেও মাছে অপদ্রব্য পুশ এর কারণে সেই তুলনায় দাম পাচ্ছে না। ফলে একদিকে দেশ যেমন রপ্তানি আয় থেকে বঞ্চিত হচ্ছে, অন্যদিকে প্রান্তিক পর্যায়ের মাছ চাষিরা ক্ষতির সম্মুখীন হয়ে ঋণগ্রস্থ হচ্ছে এবং মাছ চাষে নিরুৎসাহিত হচ্ছে। তিনি আরও বলেন, চিংড়ী মাছে যাতে কোন প্রকার অপদ্রব্য পুশ না হয় তার জন্য উপজেলাব্যাপী এ অভিযান অব্যাহত থাকবে। আর যারা এ ধরনের অপরাধমূলক কাজের সাথে জড়িত ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।
এসময় তিনি চিংড়ী মাছ নামক এ সম্পদকে বাঁচিয়ে রাখতে ও দেশের বৃহত্তর স্বার্থে এ ধরনের অপরাধমূলক অন্যায় কাজ হতে বিরত থাকার জন্য তিনি সকলের প্রতি আহবান জানান। ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনাকালে উপজেলা সিনিয়র মৎস্য অফিসার সৈকত মল্লিক, সহকারী মৎস্য কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমান, এসআই মামুন হোসেনসহ আইন শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যবৃন্দ ও অফিস সহকারি আব্দুর রশিদ উপস্থিত ছিলেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here