আশাশুনিতে ইউপি সদস্য রুহুল আমিনের বিরুদ্ধে থানায় জিডি

0
63

আশাশুনি প্রতিনিধি : আশাশুনি উপজেলার বড়দল ইউনিয়নের ইউপি সদস্য রুহুল আমিনের বিরুদ্ধে বিভিন্ন দুর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এব্যাপরে ইউনিয়নের ফকরাবাদ গ্রামের মৃত জমাত আলী বিশ্বাসের পুত্র গ্রাম পুলিশ (দফাদার) মোস্তাজুল হক বাদী হয়ে থানায় বুধবার ৪০২ নম্বর ডায়রী করেছেন।
বাদী, স্থানীয় ভুক্তভোগী পরিবার ও ডায়রী সূত্রে জানাগেছে, বড়দল ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য রুহুল আমিন দেশের এই ক্রান্তিলগ্নে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকা অসহায় গরীব দুঃখী মানুষ, খেটে খাওয়া দিন মজুর, ভ্যান চালক সহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষের মাঝে ত্রাণ বিতরণে অনিয়ম ও দুর্নীতি, কর্মসৃজন কর্মসূচির কাজ, বিধবা ভাতা, প্রতিবন্ধী ভাতা, মাতৃত্বকালীন ভাতা, ভিজিডি কার্ড, সরকারী ঘরসহ সকল প্রকার সরকারী সাহায্যের নামে তার ওয়ার্ডের বিভিন্ন শ্রেণীর মানুষের নিকট থেকে বিপুল পরিমান অর্থ হাতিয়ে নিয়েছেন।
করোনা ভাইরাস ও ঘূর্ণিঝড় আম্পানের তান্ডবে ক্ষতিগ্রস্থ হওয়া অসহায় মানুষের মাঝে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণের নামে সরকারের দেওয়া অনুদান আত্মসাত করেছেন। এসব বিষয়ে ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল আলিম মোল¬্যাকে অবহিত করা হলে তিনি গ্রাম পুলিশ (দফাদার) মোস্তাজুল হককে বলেন, টাকা-পয়সা আমাদের খেতে হবে তোমার যা ইচ্ছা তুমি তাই করো। এদিকে রুহুল আমিনের বিরুদ্ধে এ প্রতিবেদকের কাছে ভিডিও বক্তব্যে প্রদান করেছেন অনেক ভুক্তভোগী পরিবার। যেখানে দেখাগেছে ফাকরাবাদ গ্রামের খানজাহান গাজী (খানজি) এর বাক প্রতিবন্ধী মেয়ের ৩০ কেজি চাউলের কার্ড করে দেবে বলে ৩ হাজার টাকা দাবি করেন।
একই গ্রামের আলিমুদ্দিন মোড়লের পুত্র সানাউল্লার কাছ থেকে ৩০ কেজি চাউলের কার্ড বাবদ ৩ হাজার টাকা, মৃত নওশের আলী গাজীর পুত্র মান্নান গাজীর কাছ থেকে জেলা পরিষদের গাছ বিক্রয়ের কথা বলে ২৬ হাজার টাকা, ভিজিডি, বয়স্ক ভাতা, বিধবা ভাতা, প্রতিবন্ধী ভাতার কার্ড প্রতি ৩ থেকে ৪ হাজার টাকা, এলাকায় জুয়া খেলানো ও টাকার বিনিময় বাল্যবিবাহ দেওয়া সহ বিভিন্ন দুর্নীতি ও অনিয়মের কথা তুলে ধরেছেন ভুক্তভোগী পরিবার। এছাড়াও এ প্রতিবেদকের কাছে তার বিরুদ্ধে অডিও এবং ভিডিও সহ রেকর্ড সহ একাধিক তথ্য প্রমাণ সংরক্ষিত আছে। এব্যাপরে রুহুল আমিনের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, উপজেলার বিভিন্ন সরকারী কর্মকর্তা ও ইউপি চেয়ারম্যানকে আমার টাকা দিতে হয়। এছাড়া ঘূর্ণিঝড় আম্পানে ক্ষতিগ্রস্থদের তালিকা করতে বিভিন্ন কম্পিউটারে আমাকে ১৪ হাজার টাকা খরচ দিতে হয়েছে। ইউপি সদস্য রুহুল আমিনের বিরুদ্ধে অভিযোগ তদন্তপূর্বক প্রমান মিললে ব্যবস্থা গ্রহনের দাবী জানিয়েছেন বাদী ও ভুক্তভোগী এলাকাবাসী।


Warning: A non-numeric value encountered in /home/njybpvbk/public_html/wp-content/themes/Newspaper/includes/wp_booster/td_block.php on line 1009

Warning: Use of undefined constant TDC_PATH_LEGACY - assumed 'TDC_PATH_LEGACY' (this will throw an Error in a future version of PHP) in /home/njybpvbk/public_html/wp-content/plugins/td-composer/td-composer.php on line 109

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here