মণিরামপুরে ছাত্রীদের ম্যাসেঞ্জারে কুরুচিপূর্ণ বার্তা পাঠানো সেই প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে তদন্ত আগামীকাল

0
75

শফিয়ার রহমান, মণিরামপুর : ছাত্রীদের ম্যাসেঞ্জারে কুরুচিপূর্ণ বার্তা দিয়ে প্রেম নিবেদন করা সেই প্রধান শিক্ষক হায়দার আলী নিজেকে বাঁচাতে মরিয়া হয়ে উঠেছেন। সোমবার (৮ জুন) তার এসব অনৈতিক কর্মকান্ডের তদন্ত হবে। তদন্ত কমিটির সামনে নিজের পক্ষে সাফাই গাইতে বিদ্যালয়ের অন্য শিক্ষকদের চাপ প্রয়োগের অভিযোগ উঠেছে। এছাড়া বিদ্যালয়ের সদ্য অবসরে যাওয়া রেণু নামের এক শিক্ষিকা বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে প্রধান শিক্ষকের পক্ষে সাফাই গাইতে ভয়-ভীতি দিচ্ছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।
মণিরামপুর সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হায়দার আলী নিজ বিদ্যালয়ের একাধিক শিক্ষার্থীর ম্যাসেঞ্জারে ‘জান আই লাভ ইউ। আমাকে কষ্ট দিও না। আই মিস ইউ। কিস মি। তুমি কি সত্যি আমাকে একটুও ভালবাস না সোনা, এতদিন যদি আল্লাহকে ডাকতাম তবে তিনি সাড়া দিতেন।’ এরুপ কুরুচিপূর্ণ বার্তা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়। এ নিয়ে দৈনিক স্থানীয় পত্রিকাসহ বিভিন্ন গণমাধমে সংবাদ প্রকাশিত হলে বিদ্যালয়ের সভাপতি ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার আহসান উল্লাহ শরিফী উপজেলা প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা আবুজার সিদ্দিকীকে প্রধান করে ৩ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করেন। গঠিত তদন্ত সোমবার (৮ জুন) সরেজমিন বিদ্যালয়ে গিয়ে তদন্ত করার কথা রয়েছে।
এদিকে তদন্তে নিজেকে বাঁচাতে মরিয়া হয়ে উঠেছেন প্রধান শিক্ষক হায়দার আলী। বিদ্যালয়ের অন্য শিক্ষকদের নিজের সাফাই গাইতে চাপ প্রয়োগ করছেন তিনি। একই সাথে বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের দিয়ে তদন্ত কমিটির সামনে সাফাই গাইতেও বিদ্যালয়ের সদ্য অবসরে যাওয়া মিসেস রেণু নামের এক শিক্ষিকাকে দিয়ে ম্যানেজ করার চেষ্টা করছেন বলে অভিযোগ।
এ ব্যাপারে জানতে চাইলে মিসেস রেণু বলেন, ভয়-ভীতি না, স্যার (প্রধান শিক্ষক হায়দার আলী) তাকে কয়েকজন শিক্ষার্থীকে তদন্ত কমিটির সামনে হাাজর করতে বলেছেন বিধায় তিনি তাই করছেন।
নাম গোপন রাখার শর্তে বিদ্যালয়ের একাধিক শিক্ষক জানান, তাদেরকে প্রধান শিক্ষক হায়দার আলী নিজেই মোবাইল ফোনে তদন্ত কমিটির সামনে হাজার হয়ে তার পক্ষে সাফাই গাইতে চাপ দিচ্ছেন।
তদন্ত কমিটির প্রধান আবুজার সিদ্দিকী বলেন, অভিযোগ স্পর্শকাতর হওয়ায় তদন্তে কোন গাফিলতি থাকার সুযোগ নেই।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here