শহীদ ডাঃ জামিল আক্তার স্বরনে

0
84

জিল্লুর রহমান ভিটু
শহীদ ডাঃ জামিল আক্তার রতন একটি প্রতিবাদ, প্রতিরোধ, সংগ্রামের নাম। স্বাধীনতা উত্তরকালে সাম্প্রদায়িক মৌলবাদ জামাত শিবির বিরোধী প্রতিরোধের প্রতিক। রাষ্ট্রধর্ম বিল ইসলামের প্রথম বলি। জামিল মানে ছাত্র মৈত্রী। ১৯৮৮ সালের ৩১ মে রাজশাহী মেডিকেল কলেজের একাডেমিক ভবনের সামনে শিক্ষক, কর্মচারি ছাত্র কর্মকর্তাদের সামনে রাজশাহি মেডিকেলের শেষ বর্ষের মেধাবি ছাত্র, ছাত্র মৈত্রীর কলেজ শাখার সভাপতিকে প্রকাশ্য দিবালোকে রাষ্ট্রধর্মের অনুসারি জামাত শিবিরের গুন্ডাবাহিনী হাত পায়ের রগ কেটে খুচিয়ে খুচিয়ে নৃশংস্য ভাবে হত্যা করে। স্বাধীন দেশে শুরু হয় ৭১ এর চিহ্নিত ঘাতক জামাত শিবির বিরোধী সংগ্রাম। সে সংগ্রামের উপর দাড়িয়ে প্রত্যক্ষ লড়ায়ে জীবন দিয়েছে অসংখ্য সাথী। জীবন দিয়েছে ছাত্র মৈত্রীর ফারুকুজ্জামান, রিমু, রুপন অনেকে। সেদিনে সারাদেশে ছাত্র মৈত্রী যে প্রতিরোধ গড়ে তুলেছিল তা স্মরনীয়। যশোরের সকল কলেজ থেকে শিবিরকে নিষিদ্ধ করা হয়েছিল। জামাত শিবিরের নিশংসতা নিয়ে কেন্দ্র, রাজশাহী, যশোর ছাত্র মৈত্রী বুলেটিং বের করে। দলে দলে ভাগ হয়ে সে বুলেটিং আমরা যশোরের বিভিন্ন কলেজ হাটে বাজারে বিক্রি করে বেড়িয়েছি। রূপদিয়া বাজারে বুলেটিং বিক্রি করতে গেলে শিবিরের গুন্ডারা আমাদের উপর হামলা করে বুলেটিং কেরে নিতে যায়। আমাদের দৃঢ়তায় তারা বুলেটিং নিতে পারে না এবং ছাত্র মৈত্রীর সাবেক নেতা সোরাবহ হোসেন বাবুলের ভুমিকায় শিবির পশ্চাৎ অপসারণ করে। আমরা বুলেটিং বিক্রি করে আসি। আমাদের টিম ১০/১৫ জন ছিলাম। যতদুর মনে পরে ছাত্র মৈত্রীর তৎকালিন জেলা সভাপতি আইয়ুব হোসেন, আমি, শাহরিয়ার বাবু, কলি আলম ঐ টিমে ছিলাম। এতদিন পর টিমের অন্যদের নাম সঠিক ভাবে মনে নাই তাই নাম গুলি দিলাম না। সেই জীবন দান যুদ্ধ, যুদ্ধাপরাধিদের বিচার মৃত্যুদন্ড জামিল আক্তারের আত্মাহুতি ৩২ বছরেও কি সফল হয়েছে। আজ আমরা ভোটের রাজনীতিতে হেফাজতের সাথে আপোস করি। রাষ্ট্র ধর্মের প্রবক্তা এরশাদের সাথে ক্ষমতার ভাগাভাগি করি। ক্ষমতার মোহে জামিল প্রেমিদের অনেকে আজ বিভোর। মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী ও শহীদ জামিলের সহোযোদ্ধা দাবীদাররা ক্ষমতায় থাকা কালে ভাস্কার্য রক্ষা করতে যেয়ে গুটি কয়েক তরুন তরুনী রাতভর বিক্ষোভ, টিয়ার সেল, রাবার বুলেট জল কামান যে ভাবে রুখে দাড়াল – এরাই জামিল, ফারুক, রিমু রুপম, রাজিব, অভিজিৎ। এরা থাকতে দেশটা তেতুল ময় হবে না হতে দেবে না – আমরাও আছি তোমাদের সাথে।মেহনতী মানুষের মুক্তির সংগ্রামে আজো অবিচল। সাম্প্রদায়িকতা – মৌলবাদ বিরোধী লড়াই অবিচল আছি। জামিল ঘুমাও, আমরা জেগে আছি অবিচল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here