মে দিবস উপলক্ষে নিম্নআয়ের মানুষের সহযোগিতার হাত বাড়িয়েছেন যবিপ্রবি’র কর্মচারীরা

0
155
যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়

বিশেষ প্রতিনিধি : বিশ্বব্যাপী করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবজনিত উদ্ভূত পরিস্থিতিতে যবিপ্রবিতে কর্মরত দৈনিক ভিত্তিক কর্মচারীদের আর্থিকভাবে অস্বচ্ছল পরিবারের পাশে দাঁড়িয়েছে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটর কর্মচারীরা। ইতিমধ্যে প্রাথমিকভাবে পরিচয় গোপন রেখে এ পর্যন্ত আর্থিকভাবে অসচ্ছল যবিপ্রতিতে দৈনিক ভিত্তিক কর্মরত জনবলের নাম সংগ্রহ করে আর্থিক সহযোগিতা প্রদান করা হয়েছে। সূত্রে জানাগেছে, যবিপ্রবিতে কর্মরত অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটর বৃন্দের উদ্যোগে দেশের এই পরিস্থিতিতে যবিপ্রবিতে কর্মরত আর্থিকভাবে অসচ্ছল কর্মচারীদের সহযোগিতার জন্য ‘WE for US (JUST)’ শিরোনামে একটি তহবিল গঠন করা হয়েছে।

যবিপ্রবি’র কর্মচারীদের এই মহৎ উদ্যোগের ব্যাপারে উপাচার্য ড. মো. আনোয়ার হোসেন স্বাগত জানিয়ে বলেন, আর্থিকভাবে অসচ্ছল কর্মচারীদের পাশে আর্থিক অনুদান দিয়ে সহযোগিতা করায় সংশ্লিষ্ট সকলকে আমি ধন্যবাদ জানাই।

অপরদিকে, বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার প্রকৌশলী মো. আহসান হাবীব বলেন, কর্মচারীদের মধ্যে একে অন্যের প্রতি যে আন্তরিকতা যা সত্যিই প্রশংসনীয়।

যবিপ্রবি কর্মচারী সমিতির সভাপতি এস এম সাজেদুর রহমান জুয়েল সংশ্লিষ্ট সকলকে ধন্যাবাদ জ্ঞাপন করে বলেন, যে কোন মহতি উদ্যোগে তিনি সকলের পাশে আছেন এবং থাকবেন।

অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটর আব্দুল্লাহ-আল-আহাদ, মাহমুদুল হাসান, এম আর সেলিম, হারুন অর রশিদ, হুমায়ুন কবির, শাহারুল আলম রুমেন, মোস্তাফিজুর রহমান,  মিজানুর রহমান, সুদীপ্ত শাহীন, আনোয়ার হোসেন, শাহারিয়া পারভীন রাখি, হাসনাহেনা, বৈশাখী রায়,   ইমরুল ইসলাম, এ আর আতিক, সৈয়দ হাসিব হাসান, মেহেদী হাসান , শাহনাজ আক্তার, ফারহানা পাভরীনসহ অনেকেই বলেন দৈনিক ভিত্তিক জনবলের জন্য তাদের এই প্রচেষ্টা মানবতার এক অনন্য উদাহরণ হয়ে থাকবে এবং ভবিষ্যতেও এই ধরনের সহযোগিতার ধারা অব্যাহত থাকবে।

অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটর অনুপ কুমার বড়াল জানান, যবিপ্রবিতে যারা দৈনিক ভিত্তিতে (কাজ নেই মজুরী নেই) কর্মরত আছেন তারা মূলত শ্রমিক শ্রেণীর কাতারে পড়ে। কম্পিউটার অপারেটরদের এই উদ্যোগ কোন সহযোগিতা নয় বরং সহকর্মী ভাইদের প্রতি ভালোবাসার উপহার। মহামারী করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে সৃষ্ট এই দুর্যোগ মোকাবেলায় আর্থিকভাবে অস্বচ্ছল  মানুষের পাশে সকলে যেন নিজ নিজ অবস্থান থেকে এগিয়ে আসেন।

দৈনিক ভিত্তিক কর্মরত নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন বলেন, বর্তমান করোনা পরিস্থিতিতে তারা সত্যিকার অর্থে অনেক কষ্টকর জীবন যাপন করছেন। সাপ্তাহিক বন্ধ ব্যতিত প্রতিমাসে ডিউটি করলে উপস্থিতির হিসাবে ২০/২২ বেতন পান। বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ থাকলেও কর্তৃপক্ষ চলতি মাসে ১৮ দিনের বেতন প্রদান করেছেন। অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটরদের সহযোগিতার টাকা তারা বিকাশের মাধ্যমে গ্রহণ করেছেন।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here