মণিরামপুর ঝাঁপা বাওড় পাড়ে সন্ত্রাসীদের হামলা, যবিপ্রবি’র ছাত্রলীগের ভিপি সুব্রত বিশ্বাসসহ গ্রেফতার-৩

0
202

এম আর রকি : যশোরের মণিরামপুরের ঝাঁপা বাওড়ের পাড়ে সন্ধ্যারাতে অর্তকিত হামলা চালিয়ে পারপিটসহ ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে জখম ও নগদ টাকা স্বর্ণের চেইন ছিনতাইয়ের সাথে জড়িত অভিযোগে পুলিশ সুব্রত বিশ্বাসসহ তিনজনকে গ্রেফতার করেছে। তাদেরকে রোববার ১৯ এপ্রিল আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে। সুব্রত বিশ্বাস যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগের একক আধিপত্য ও ভিপি এবং মণিরামপুর উপজেলার হানুয়ার (কোমলপুর মালোপাড়া) শিবপদ বিশ্বাসের ছেলে। অপর গ্রেফতারকৃত দুই আসামী হচ্ছে, একই উপজেলার মশ্বিমনগর (রাজবাড়ী) গ্রামের ধীরেন্দ্র নাথ বিশ্বাসের ছেলে দুলাল বিশ্বাস ও একই এলাকার রঞ্জন বিশ্বাসের ছেলে সবুজ বিশ্বাস।
হানুয়ার ( কোমলপুর মালোপাড়া) গ্রামের কৃষ্ণপদ বিশ্বাসের ছেলে রনি কুমার বিশ্বাস বাদী হতে শনিবার দিবাগত গভীর রাত সাড়ে ১২ টায় মণিরামপুর থানায় আসামীদের নামে মামলা দায়ের করেছেন। আসামীরা হচ্ছে, সুব্রত বিশ্বাস, তার সহোদর বিপ্লব বিশ্বাস, দুলাল বিশ্বাস, অজিত বিশ্বাসের ছেলে শ্যামল বিশ্বাস, মৃত রাধাপদ বিশ্বাসের ছেলে প্রভাস বিশ্বাস, রঞ্জন বিশ্বাসের ছেলে সবুজ বিশ্বাস, হানুয়ার (কোমলপুর মালোপাড়া) এর গোবিন্দ রায়ের ছেলে মনোতোষ রায়, মৃত উপেন্দ্রনাথ বিশ্বাসের ছেলে জীবন রতন বিশ্বাস, মাদাই বিশ্বাসের ছেলে জয়ন্ত বিশ্বাস, অনিল রায়ের ছেলে মঙ্গল রায়, মৃত শুকলালের ছেলে বনমালিসহ অজ্ঞাতনামা ২০/২৫জন।
রনি কুমার বিশ্বাস দায়েরকৃত এজাহারে উল্লেখ করেন, শনিবার ১৮ এপ্রিল তিনিসহ একই এলাকার শিমুল বিশ্বাস (২৩), মনিশান্ত বিশ্বাস (২৫), কুমারেশ বিশ্বাস (২২), উত্তম বিশ্বাস (৩০) ও সাধন বিশ্বাস (৩৫)সহ কয়েকজন হানুয়ার গ্রামস্থ কোমলপুর মালোপাড়াস্থ জনৈক তুলশী কুমার এর বাড়ির দক্ষিণ পার্শ্বে ঝাঁপা বাওড়ের পাড়ে বসে ছিল। হঠাৎ সুব্রত বিশ্বাস ও বিপ্লব বিশ্বাসের নেতৃত্বে উল্লেখিত আসামীরা তাদের উপর হামলা চালিয়ে এলোপাতাড়ীভাবে মারপিটসহ ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে সুব্রত বিশ্বাস কুপিয়ে জখম করে। এ সময় পূর্ব পরিকল্পিতভাবে হামলা চালিয়ে জখম করে সবুজ বিশ্বাস রনি কুমার বিশ্বাসের কাছে থাকা নগদ ৭০ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেয়। প্রভাস বিশ্বাস সাধন বিশ্বাসের হাতে আঘাত করে হাড়ভাঙ্গা জখম করে। দুলাল বিশ্বাস ও মঙ্গল রায় মনিশান্তর গলায় থাকা ১ভরি ওজনের স্বর্ণের চেইন ছিনিয়ে নিয়ে প্রাণ নাশের হুমকী দিয়ে চলে যায়। গুরুতর আহত অবস্থায় রনি কুমার বিশ্বাসসহ তার সহযোগীদের মণিরামপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেওয়ার উপর উন্নত চিকিৎসার ব্যবস্থা গ্রহন করেন। এ ঘটনায় মণিরামপুর থানার অফিসার ইনচার্জ রফিকুল ইসলামসহ রাজগঞ্জ ঝাঁপা পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রে পুলিশ পরিদর্শক তারিকুল ইসলামসহ একদল পুলিশ শনিবার গভীর রাতে অভিযান চালিয়ে সুব্রত বিশ্বাস, দুলাল বিশ্বাস ও সবুজ বিশ্বাসকে গ্রেফতার করে। রোববার দুপুরে তাদেরকে আদালতে সোপর্দ করেছে। তাদেরকে মামলার তদন্তর স্বার্থে রিমান্ডের আদেবন জানানো হবে বলে জানাগেছে। গ্রেফতার হওয়া সুব্রত বিশ্বাস জানান, তিনি এঘটনার কিছুই জানেন না। গভীর রাতে তাকে বাড়ি হতে গ্রেফতার করে মণিরামপুর থানা পুলিশ। মূলত ঝাঁপা বাওড় নিয়ে ষড়যন্ত্রের কারণে তাকে ফাঁসানো হয়েছে বলে তিনি দাবি করেছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here